একা হাতে বাংলাদেশকে জেতালেন সাকিব

shakb1

চলমান ত্রিদেশীয় সিরিজে ইতোমধ্যেই ফাইনাল নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান। তবে নিয়মরক্ষার জন্য আজ আফগানিস্তানের বিপক্সে লিগ পর্বের শেষ ম্যাচটি খেলতে নামছে বাংলাদেশ। চট্টগ্রামে টস জিতে আগে বোলিং করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। আগে ব্যাট করে ৭ উইকেট হারিয়ে স্কোড়বোর্ডে ১৩৮ রানের বেশি করতে পারেনি আফগানিস্তান। সাকিব আল হাসানের ব্যাটিং নৈপুণ্যে আফগানিস্তানকে ৪ উইকেটে হারালো বাংলাদেশ। 

295058

ফাইনালের আগে লিগ পর্বের শেষ ম্যাচে আফগানিস্তানকে হারিয়ে গ্রুপ পর্বে চ্যাম্পিয়ন হয়ে বাংলাদেশ খেলবে টুর্নামেন্টের ফাইনাল। সাকিব আল হাসান একা হাতেই বাংলাদেশকে জেতালেন। ১ ছয় ও ৮ চারে ৪৫ বলে ৭০ রানের ইনিংস খেলে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন সাকিব।

বাংলাদেশের হয়ে তামিমকে টপকে শীর্ষে সাকিবঃ

তামিম ইকবালকে টপকে বাংলাদেশের হয়ে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি রান এখন সাকিব আল হাসানের। আজকের ম্যাচের আগে তামিমের চেয়ে ৫৯ রানে পিছিয়ে ছিলেন সাকিব। ১৮তম ওভারে রাশিদ খানকে বাউন্ডারি হাকিয়ে তামিমকে টপকে গেলেন সাকিব।

উইকেটে টিকলেন না আফিফওঃ

আফিফকে বোল্ড করে প্যাভিলিয়নের পথ ধরালেন রাশিদ খান। ৪ বলে ২ রান আসে আফিফের ব্যাট থেকে।

১৬ ওভার শেষে বাংলাদেশের স্কোর ৬ উইকেটে ১০৫ রান।

সাকিব আল হাসানের পঞ্চাশঃ

৭ চারে ৩৫ বলে ফিফটি পুর্ণ করলেন সাকিব আল হাসান। ইনিংসের ১৫তম ওভারে নাভিন-উল হকের করা বলকে ডিপ মিড-উইকেটে পাঠিয়ে দৌঁড়ে ২ রান নেন সাকিব। আর তাতেই নিজের ক্যারিয়ারের নবম ফিফটি পেয়েছেন সাকিব।

মাহমুদউল্লাহ ও সাব্বিরকে হারিয়ে বিপাকে বাংলাদেশঃ

আগের ওভারে ইনিংসের ১৪ তম ওভারে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ৬ রানে রাশিদ খানের বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়ে ফিরে যান প্যাভিলিয়নে। পরের ওভারে সাব্বির রহমানও ফিরলেন; ইনিংস বড় করতে আরও একবার ব্যর্থ সাব্বির। ২ বলে করেন ১ রান।

ফ্লাডলাইট বিপর্যয়ঃ

১২.৪ ওভার খেলা শেষ হবার পর ফ্লাডলাইট বিপর্যয়ে খেলা বন্ধ থাকে বেশ কিছুক্ষণ। পরে বিপর্যয় কাটিয়ে শুরু হয় খেলা।

দ্বিতীয় বার জীবন পেলেন না মুশফিকঃ

আগের ওভারেই মোহাম্মদ নবিকে উড়িয়ে মারতে যেয়ে ক্যাচ দিয়েছিলেন। সহজ সে ক্যাচ ধরতে পারেননি তারাকাই। পরের ওভারে করিম জান্নাতের বলে শফিকউল্লাহকে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরের পথ ধরেন মুশফিক। ২৫ বলে ১ ছয়ে ২৬ রান করেন তিনি।

রাশিদের হ্যামস্ট্রিংঃ

হ্যামস্ট্রিং ইনজুরি নিয়ে মাঠ ছেড়েছেন আফগান অধিনায়ক রাশিদ খান। ৮ম ওভারে ফিল্ডিং করার সময় হঠাৎ মাটিতে শুয়ে পড়েন রাশিদ। পরক্ষণেই মাঠ ছাড়েন তিনি। ১১ ওভার শেষ হবার পরেই অবশ্য মাঠে ফেরেন তিনি। এসেই বল হাতে নিতে চেয়েছিলেন। তবে বেশ কিছুক্ষণ মাঠের বাইরে থাকা রাশিদ বল করার অনুমত পাননি আম্পায়ারের কাছ থেকে।

ফিরে গেলেন লিটন, শান্তঃ

এমনিতে দ্রুত রান তোলাতে পটু লিটন দাস আজ রান তুলতে হিমশিম খাচ্ছিলেন। ১০ বলে ৪ রানের অস্বস্তিকর ইনিংস থামে মুজিব উর রহমানের বলে আসগর আফগানকে ক্যাচ দিলে। তিন নম্বরে ব্যাট করতে নেমেছেন সাকিব আল হাসান। পরের ওভারে নাভিন উল হকের বলে রাশিদ খানকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন নাজমুল হোসেন শান্ত (৮ বলে ৫ রান)। ১২ রানেই ২ উইকেট হারিয়ে বিপাকে বাংলাদেশ দল।

ইনিংস বিরতিঃ

নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে আফগানিস্তান দল ১৩৮ রান সংগ্রহ করে। গ্রুপ পর্বে চ্যাম্পিয়ন হয়ে ফাইনালের মঞ্চে যেতে বাংলাদেশের দরকার ১৩৯ রান।

৩ ওভারে ১ মেইডেন সহ ৯ রান খরচে ২ উইকেট নিয়েছেন আফিফ হোসেন। সাকিব, শফিউল, সাইফউদ্দিন ও মুস্তাফিজের শিকার ১টি করে উইকেট।

আফগানিস্তানের হয়ে সর্বোচ্চ ৪৭ রান করেন হযরতউল্লাহ জাজাই। রহমানউল্লাহ গুরবাজ ২৯ রান করেন।

শফিউল উইকেটে দাঁড়াতেই দেননি করিম জানাতকেঃ

৪ বলে ৩ রান করা করিম জানাত ১৭তম ওভারের পঞ্চম বলে শফিউলকে উড়িয়ে মারতে যেয়ে বাউন্ডারি সীমানায় ধরা পরেন মুস্তাফিজের হাতে।

১৭ ওভার শেষে আফগানিস্তানের স্কোর ৭ উইকেটে ১১৪ রান।

সাইফউদ্দিনের বলে বোল্ড হলেন নাজিবউল্লাহঃ 

১৪ রানে ব্যাট করছিলেন নাজিবউল্লাহ জাদরান। কিন্তু ইনিংসের ১৬তম ওভারে বল হাতে আসেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন; এসেই বোল্ড করে ফেরালেন নাজিবউল্লাহকে।

১৬ ওভার শেষে আফগানিস্তানের স্কোর ৬ উইকেটে ১১০।

সাকিবের ‘৩৫০’তম শিকার নবিঃ

মোহাম্মদ নবিকে ৪ রানে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেন সাকিব।

চতুর্থ ক্রিকেটার হিসেবে টি-টোয়েন্টিতে ৩৫০ উইকেটের মাইলফলক গড়লেন সাকিব আল হাসান।

৩০২ টি-টোয়েন্টিতে সাকিবের উইকেট ৩৫০টি।  তার থেকে এগিয়ে আছেন সুনীল নারিন (৩৭৬), লাসিথ মালিঙ্গা (৩৮৫) ও ডোয়াইন ব্রাভো (৪৯০)।

গুলবেদিন নায়েব ১ রান করে রান-আউটের শিকার হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরলে ৯৬ রানেই ৫ উইকেট হারায় আফগানিস্তান।

রহমানউল্লাহর নতুন জীবন থামালো মুস্তাফিজঃ

আফগান ওপেনার রহমানউল্লাহ গুরবাজ আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরতে পারতেন ১ রানেই। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারের পঞ্চম বলে শফিউল ইসলামের বলে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের হাতে ক্যাচ তুলেন রহমানউল্লাহ গুরবাজ। হাতে তালুবন্দি করে বলটি রাখতে পারেননি রিয়াদ; নতুন জীবন পান রহমানউল্লাহ।

এরপর করেন আরও ২৮ রান (মোট ২৯ রান)। এবার মুস্তাফিজুর রহমান নিজের বলে নিজেই ক্যাচ ধরে তাকে ফেরালেন প্যাভিলিয়নে।

১১ ওভার শেষে আফগানিস্তানের স্কোর ৮৩/৩।

আফিফ আসলেন, উইকেট নিলেনঃ

আফিফ হোসেন ধ্রুব ইনিংসের দশম ওভারে বল হাতে আসলেন। প্রথম দুই বল হযরতউল্লাহ জাজাইকে পরাস্ত করলেন; বল ব্যাটে ছোঁয়াতেই পারলেন না জাজাই। তৃতীয় বলে বাউন্ডারি হাঁকাতে যেয়ে বল উপরে তুললেন; ক্যাচ নিলেন মুস্তাফিজ। ৩৫ বলে ৪৭ করা হযরতউল্লাহ জাজাই পথ ধরলেন সাজঘরের।

এক বল বিরতি দিয়েই আসগর আফগানকে ‘০’ রানে রেখেই আফিফ ফেরালেন সাজঘরে। ১ ওভারে কোনো রান না দিয়েই ২ উইকেট শিকার করলেন আফিফ।

৭ ওভার শেষে আফগানিস্তানের স্কোর ৫১/০। হযরতউল্লাহ জাজাই ২৬* (৩৫ বল), রহমানউল্লাহ গুরবাজ ১৫* (১৭ বল) রানে ব্যাট করছেন।

শুরুতেই ক্যাচ মিস মাহমুদউল্লাহ’রঃ  

আফগান ওপেনার রহমানউল্লাহ গুরবাজ আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরতে পারতেন ১ রানেই। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারের পঞ্চম বলে শফিউল ইসলামের বলে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের হাতে ক্যাচ তুলেন রহমানউল্লাহ গুরবাজ। হাতে তালুবন্দি করে বলটি রাখতে পারেননি রিয়াদ; নতুন জীবন পান রহমানউল্লাহ।

৪ ওভার শেষে আফগানিস্তানের স্কোর ২৫/০। হযরতউল্লাহ জাজাই ১৫* (১২ বল), রহমানউল্লাহ গুরবাজ ৮* (১৩ বল) রানে ব্যাট করছেন।

EEgSVOtWkAA 94e

আজ শনিবার চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরি স্টেডিয়ামে ফাইনালের আগে লিগ পর্বের শেষ ম্যাচটি শুরু বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায়। লিগ পর্বের প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তানের কাছে ২৫ রানে ম্যাচ হারে বাংলাদেশ।

হাতের ইনজুরির কারণে এ ম্যাচে খেলতে পারছেন না তরুণ লেগস্পিনার আমিনুল ইসলাম বিপ্লব। তার জায়গায় একাদশে সুযোগ পেয়েছেন সাব্বির রহমান।

বাংলাদেশ একাদশঃ  লিটন দাস,  নাজমুল হোসেন শান্ত, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সাব্বির রহমান, আফিফ হোসেন ধ্রুব, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, মুস্তাফিজুর রহমান ও শফিউল ইসলাম।

আফগানিস্তান একাদশঃ রাশিদ খান (অধিনায়ক), আসগর আফগান, মোহাম্মদ নবী, হযরতউল্লাহ জাজাই, শরাফুদ্দিন আশরাফ, নাজিবউল্লাহ জাদরান, শহিদউল্লাহ কামাল, ফরিদ আহমেদ মালিক, শফিকউল্লাহ শাফাক, দৌলত জাদরান, নাভিন-উল হক এবং রহমানউল্লাহ গুরবাজ।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

টি-১০ লিগে বাংলাদেশি ফ্র্যাঞ্চাইজি, বাড়ছে বাংলাদেশি ক্রিকেটারও

Read Next

রনির শেষ ওভারের রোমাঞ্চে জিতলো বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৩ দল

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
18
Share