‘লোকের সমালোচনাও আমাকে অবসরে যেতে প্রভাবিত করেছে’

1546433647573
Vinkmag ad

দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক ক্রিকেটার এবি ডি ভিলিয়ার্স ১৫ বছরের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়েছেন গত বছর। ফিটনেস আর সাম্প্রতিক পারফর্ম বলছে ভিলিয়ার্স নির্বিঘ্নে খেলতে পারতেন আরও কয়েক বছর। তবে তিনি নিজেই জানালেন এমন সিদ্ধান্তে ছিল নানা কারণ, পরিবারকে সময় দেওয়াটা ছিল প্রধান লক্ষ্য। এক সাক্ষাৎকারে ভিলিয়ার্স জানিয়েছেন ভারতীয়দের আথিতেয়তায় বেশ মুগ্ধ তিনি।

গত বছরের ২৩ মে হুট করেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়ে বসেন আব্রাহাম বেঞ্জামিন ডি ভিলিয়ার্স। শারীরিকভাবে যথেষ্ট ফিট থাকার পাশাপাশি পারফরম্যান্সেও  ছিলনা কোন কমতি। এরপরও এমন সিদ্ধান্তে অবাক হয়েছেন অনেকেই। গৌরভ কাপুরের ইউটিউব শো ‘ব্রেকফাস্ট উইথ চ্যাম্পিয়ন’ এ ভিলিয়ার্স জানিয়েছেন সিদ্ধান্ত নেওয়ার কারণ, অনেকটা ক্ষোভও ঝেড়েছেন ২২ গজে বোলারদের শাসন করা এই ক্রিকেটার।

এ প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে ৩৫ বছর বয়সী দক্ষিণ আফ্রিকান জানান, ‘পিছনে লোকের সমালোচনাও আমাকে অবসরে যেতে প্রভাবিত করেছে। এটা আমার জন্য কঠিন সিদ্ধান্ত ছিল। অহংকারী দেখালেও, আমি বলছি আমি আবারও বিশ্বকাপ খেলবো। তারা বলে আপনি নাকি রুটির দুই পাশে খেতে পারবেন না।’

SAVE 20180523 181608

লোকের সমালোচনার পাশাপাশি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ব্যস্ত সূচী পরিবার থেকে দূরে নিয়ে যাওয়াও ভিলিয়ার্সকে অবসরে যেতে বাধ্য করে জানিয়েছেন নিজেই। সাবেক এই তারকা আরও যোগ করেন, ‘আমি দলের অংশ ছিলাম। দলের বাইরে নিজের কিছুই ছিলনা। একটা সময় এলো, যখন নিজেকে নিয়ে ভাবার প্রয়োজন দেখা দিল। অনেকগুলো কারণ ছিল ছেড়ে আসার, তবে পরিবার তার মধ্যে অন্যতম একটি। সফল আন্তর্জাতিক ব্যস্ত সূচিতে আমি ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলাম। আর দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক হিসেবে এটা কত কঠিন সেটাতো জানেনই।’

তবে সবকিছুর আড়ালে লুকিয়ে আছে কোন গভীর ক্ষত সেটা তার কথাতে স্পষ্টই, কথা প্রসঙ্গে জানিয়েছেন বর্ণাঢ্য এই ক্যারিয়ার ছেড়ে দেওয়ার পেছনে এমন কিছু কারণ ছিল যা বলতে গেলে ৫০ দিনের মত সময় লেগে যাবে। বিদায় প্রসঙ্গ মাড়িয়ে ভিলিয়ার্স ভারতীয়দের আচরণ আর আথিতিয়েতায় মুগ্ধতার কথা জানাতে ভুলেননি। বিশেষ করে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের হয়ে খেলার সুবাধে বন্ধুত্ব হওয়া ভারত দলপতি ভিরাট কোহলিকে ভাসিয়েছেন প্রশংসার বন্যায়।

AB de Villiers IPL

২০০৮ সালে আইপিএলের প্রথম আসর থেকেই নিয়মিত মুখ ভিলিয়ার্স। দেশটির সাংস্কৃতি আর জনগণের আচরণে যারপরনাই মুগ্ধ সাবেক প্রোটিয়া দলপতি। রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুতে খেলার সুবাদে ভিরাট কোহলির অন্যতম ভক্ত বনে গেছেন দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে প্রায় ২০ হাজার আন্তর্জাতিক রানের মালিক।

ভিরাট ও ভারতীয়দের অসাধারণ বন্ধু সুলভ আচরণ প্রসঙ্গে নিজের মন্তব্য তুলে ধরতে গিয়ে এবিডি জানান, ‘যখন বুঝতে পারি তার মত (কোহলি) একজন বড় মাপের তারকা যে ভারতের জন্য অনেক বড় কিছু। তারাই কীনা অল্প কিছুতে আনন্দ পায়৷ যা খুব সামান্য তবে গুরুত্বপূর্ণ। এবং তারা অন্যের জন্য সময় করে যেটা তাদের জীবনযাপনের সাথে কঠিন। এরপর থেকেই তাকে (কোহলি) কিছু বলতে ভয় পাই কারণ আমি যদি বলি তোমার জুতা জোড়া পছন্দ হয়েছে, সে খানিক বাদেই এটার ব্যবস্থা করে দিবে। সে সবার খেয়াল রাখে। আমি শুধু বলেছি কফি পছন্দ, সে অ্যামাজনে ইতোমধ্যে কফি মেশিনই অর্ডার করে দিয়েছে আমার জন্য।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশকেই এগিয়ে রাখছেন রমিজ রাজা

Read Next

‘টাকার জন্য মানুষ কি-ই না করতে পারে’, কোহলির উদ্দেশ্যে হজ

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
0
Share