তামিম-ঝলকের দিনে ‍কুমিল্লার রোমাঞ্চকর জয়

comilla 1

১৮২ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে উদ্বোধনীতে তামিম ইকবাল ও এনামুল হক বিজয়ের ১১৫ রানের জুটিতে জয়ের পথ সহজ হয় কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের। এরপর জুনায়েদ খানের তোপের মুখে পড়ে ৩৮ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় কুমিল্লা। শেষ দিকে থিসারা পেরেরার দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে জয় নিশ্চিত করে কুমিল্লা। ‍ব্যাট হাতে ঝলক দেখালেন দেশসেরা ওপেনার। তামিম ঝলকে আলোকিত হল দলও। খুলনা টাইটানসকে ৩ উইকেটে হারিয়ে রোমাঞ্চকর জয় পায় তারা। ছয় ম্যাচে এটি তামিমদের চতুর্থ জয়।

49206446 1942446559142609 5644354696513585152 n

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ওপেনার জহুরুল ইসলামকে হারিয়ে ফেলেছিল খুলনা টাইটান্স। তারপরই শুরু জুনাইদ সিদ্দিকী ও আল আমিনের তাণ্ডব। খুলনা চ্যালেঞ্জিং রানের ভিত্তি পেয়েছে জুনাইদ ও আল আমিন জুটিতে। আর শেষ দিকে তাতে অবদান রেখেছেন ডেভিড মালান। তবে রান আরো বেশি হতে পারতো। কিন্তু আল আমিনকে আউট করে তা হতে দেননি শহীদ আফ্রিদি। ব্যক্তিগত ৩২ রানে (১৯ বলে) আফ্রিদির বলে বোল্ড হয়ে যান আল আমিন। ফলে ৯৩ রানে থেমে যায় জুনাইদ-আল আমিন জুটিটি।

খুলনার অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ এসেও মারমুখী ব্যাট শুরু করেন। তাকেও থামিয়ে দেন আফ্রিদি। ব্যক্তিগত ১৬ রানে (৯ বলে) সাজঘরে ফেরেন খুলনার অধিনায়ক। এরপর ডেভিড মালানের সাথে জুটি গড়েন জুনাইদ। দুইজনের জুটিতে আসে ৫০ রান। তারপরই রান আউটের শিকার হয়ে মাঠ ছাড়েন জুনাইদ। চারটি ছক্কা ও চারটি চারে সাজিয়ে ৪১ বলে ৭০ রান করেছেন তিনি।

tamim cv bpl 1

এরপর মালানের ২৫ বলে ২৯, কার্লোস ব্র্যাথোয়েটের ৯ বলে ১২ ও আরিফুল হকের ৯ বলে ১৩ রানে ভর দিয়ে চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে খুলনা। নির্ধারিত ২০ ওভার ব্যাট করে ৭ উইকেটে ১৮১ রান সংগ্রহ করেছে খুলনা।

খুলনা টাইটানসের বিপক্ষে ১৮২ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নেমে দুর্দান্ত খেলে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। উদ্বোধনীতে ১১৫ রানের জুটি গড়েন তামিম ইকবাল ও এনামুল হক বিজয়।

tamim cv bpl 2

বিপিএলের চলমান ষষ্ঠ আসরে এর আগে উদ্বোধনীতে ১১৬ রানের জুটি গড়েন ডায়নামাইটসের দুই বিদেশি ক্রিকেটার হজরতউল্লাহ জাজাই ও সুনীল নারিন। বিপিএলের দ্বিতীয় ম্যাচে রাজশাহী কিংসের বিপক্ষে এই রান করেন তারা।

সবশেষ দুই ম্যাচে শূন্য রানে আউট হওয়া তামিম, সিলেটের বিপক্ষে শুক্রবার অসাধারণ ব্যাটিং করেন। কোনো উইকেট না হারিয়ে ১১৫ রান করে কুমিল্লা। এরপর ১৪ রানের ব্যবধানে হারায় ৩ উইকেট। লাসিথ মালিঙ্গার বলে ক্যাচ তুলে বিদায় নেয়ার আগে ৪২ বলে ১২টি চার ও এক ছক্কায় ৭৩ রান করেন তামিম। তার বিদায়ের পর অন্য ওপেনার বিজয় ফেরেন ৩৭ বলে ৪০ রান করে। চার নম্বর পজিশেন ব্যাটিংয়ে নেমে ১ রানে রান আউট শামসুর রহমান শুভ।

50252828 1942446149142650 8605986456743182336 n

শেষ দিকে জয়ের জন্য কুমিল্লার প্রয়োজন ছিল ২৪ বলে ২৯ রান। ১৭তম ওভারে ১ রানে ২ উইকেট তুলে নেন জুনায়েদ খান। তার দুর্দান্ত বোলিংয়ে পরাজয়ের দ্বার প্রান্তে থাকা খুলনা টাইটানস ফের জয়ের স্বপ্ন দেখে।

জয়ের জন্য শেষ ১৮ বলে কুমিল্লার প্রয়োজন ছিল ২৯ রান। ১৮তম ওভারে লাসিথ মালিঙ্গাকে এক বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ৯ রান আদায় করে নেন শহীদ আফ্রিদি। শেষ ১২ বলে প্রয়োজন ১৯ রান। ১৯তম ওভারে জুনায়েদ খান ১১ রান খরচ করে তুলে নেন আফ্রিদি ও জিয়াউর রহমানের উইকেট।

শেষ ওভারে জয়ের জন্য কুমিল্লার প্রয়োজন ছিল মাত্র ৮ রান। কার্লোস ব্রাথওয়েট শুরুতেই ওয়াইড দেন, প্রথম বল ডট, দ্বিতীয় বলে সিঙ্গেল নেন সাইফউদ্দিন। তৃতীয় বলে বাউন্ডারি হাঁকান থিসেরা পেরেরা। চতুর্থ বলে ছক্কা হাঁকিয়ে দলের জয় নিশ্চিত করেন পেরেরা।

97 Desk

Read Previous

‘সাকিব পারফর্ম করলে অন্যদের জন্য ডিফিকাল্ট হয়ে যায়’

Read Next

সালাহউদ্দিনকে বলেছিলেন তামিম, ‘আমার খুব ভয় লাগছে’

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Total
0
Share