তিন অর্ধশতকে বাংলাদেশের পুঁজি ২৫৭

match report 15
Vinkmag ad

bangladesh vs new zealand oneday এর চিত্র ফলাফল

ক্লনটার্ফের ক্রিকেট ক্লাব মাঠটা বাংলাদেশী ক্রিকেটারদের কাছে নতুন হলেও মাঠ দেখে জাতীয় দলের বোলিং কোচ কোর্টনি ওয়ালশের ঠোঁটের কোনায় হয়তোবা হাসির ঝিলিক খেলে গিয়েছিলো। বিশ্বকাপের আসরে টাইগারদের প্রথম ম্যাচ কিন্তু খেলতে হয়েছিল এই মাঠেই এবং কোর্টনি ওয়ালশের ওয়েস্ট ইন্ডিজই ছিল সেদিন বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ। চার উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা হয়েছিলেন বর্তমানে মাশরাফি, রুবেলদের বোলিং গুরুই।

ফিরতি ম্যাচে মাশরাফির টসে হার, টাইগারদের নামতে হলো ব্যাট হাতে

নিষেধাজ্ঞার কারণে প্রথম ম্যাচে দলে ছিলেননা নিয়মিত অধিনায়ক মাশরাফি। লঙ্কা সফরের শেষ ওয়ানডেতে স্লো ওভার রেটের খাঁড়ায় এক ম্যাচ মাঠের বাইরে বসে কাটিয়ে ফিরে আসার ম্যাচে টম লাথামের কাছে টসে হেরে মাশরাফিকে শুনতে হলো ব্যাটিং করতে নামতে হচ্ছে তার দলকে।

যাক, উইকেটটা তো আলাদা করা গেলো

ম্যালাহাইডে তো দর্শক, ক্রিকেটারসহ সবাই ভড়কে গিয়েছিল উইকেট দেখেই। উইকেটে সবুজের আধিক্য পার্থক্য করতে দিচ্ছিলোনা কোনটা মাঠ আর কোনটা উইকেট! তবে এই ম্যাচে ন্যাড়া উইকেটেই ব্যাট করতে নেমেছিলেন দুই টাইগার উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল আর সৌম্য সরকার।

ক্লনটার্ফে রোদ্রজ্জ্বল সকাল, বাংলাদেশী ইনিংসেও রোদের ছটা

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছিলো বুধবারও হতে পারে প্রবল বর্ষণ। তবে ক্লনটার্ফে সকাল বেলাটায় সূর্যের হাসি দেখা গিয়েছিল। একইভাবে তামিম আর সৌম্যের ব্যাটেও হাসি ফুটেছিল বাংলাদেশী সমর্থকদের মুখে। ১৫.২ ওভারে এ দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান সংগ্রহ করেন ৭২ রান। তামিম ইকবাল এদিন খোলসের ভেতরই ছিলেন। ৪২ বলে ২৩ করে ফিরে যাওয়ার আগে চার মেরেছেন তিনটি। সৌম্য সরকার তখনও অন্যপ্রান্তে অপেক্ষায় নিজের ৫ম অর্ধশতকের।

সাজঘরে যাওয়ার প্রতিযোগীতায় সাব্বিররা, সৌম্যের অর্ধশতক

তামিম ইকবাল ফিরে যাওয়ার মাত্র ৭ রানের মাথায় সাজঘরের পথ ধরেছিলেন সাব্বির রহমানও (১)। মুশফিকুর রহিমকে সঙ্গে নিয়ে তৃতীয় উইকেট জুটিতে ৩৮ রান যোগ করে সৌম্য সরকার তুলে নিয়েছিলেন নিজের ৫ম ওয়ানডে অর্ধশতক। তবে এরপরই ব্যক্তিগত ৬১ রানের মাথায় ইশ সোধিকে সুইপ করে বল আকাশে পাঠিয়ে টম লাথামের ক্যাচ হয়ে সাজঘরের ফেরেন সৌম্য। ৬৭ বলে ৫ চারে সাজানো ইনিংসটাকে বড় করতে না পারার আক্ষেপটা পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছিল সৌম্যর চোখে মুখেও। পঞ্চম ব্যাটসম্যান হিসেবে উইকেটে আসা সাকিব আল হাসানও শিকার হন ইশ সোধির বলে উড়িয়ে মারতে গিয়ে।

আবারও আস্থার নাম মুশফিক, রিয়াদ

মাত্র ৪৫ রানেই ৫ উইকেট হারিয়ে বসা বাংলাদেশ দলের ইনিংসকে এগিয়ে নিতে এবারও ত্রাতা হিসেবে হাজির হন নিয়মিত উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম এবং মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। ৫ম উইকেট জুটিতে ৪৯ রান যোগ করার পাশাপাশি ৬০ বলে ৪ চার আর ১ ছক্কায় মুশফিকের ব্যাট থেকে ওয়ানডে ক্যারিয়ারে ২৪তম অর্ধশতকের দেখা পায় বাংলাদেশ। ব্যক্তিগত ৫৫ রানে মুশফিক ফিরে যান শিবিরে। তবে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতকে সঙ্গে নিয়ে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ শুধু দলের পুঁজিই সমৃদ্ধশালী করেননি, রানের চাকাও ঘুরিয়েছেন ওভারপ্রতি ৬ গড়ে। সাথে নিজের ১৭তম অর্ধশতকের দেখাও পান রিয়াদ। ৪৮তম ওভারে ৬ চারে ৫৬ বলে ৫১ করা রিয়াদ থামেন বেনেটের বলে র‍্যাঞ্চের অসাধারণ এক ক্যাচের শিকার হয়ে।

মোসাদ্দেকে ভর করে এলো চ্যালেঞ্জিং পুঁজি

তরুণ মোসাদ্দেক বেশ কিছুদিন ধরেই বাংলাদেশ ইনিংসের সুন্দর ইতি। এ ম্যাচেও তার ব্যতিক্রম হয়নি। রিয়াদের সঙ্গে ৬৯ রানের জুটি গড়া মোসাদ্দেক সৈকতের ৪১ রানে ভর করে নির্ধারিত পঞ্চাশ ওভার শেষে বাংলাদেশ সংগ্রহ করে ৯ উইকেটে ২৫৭। ক্লনটার্ফের বাউন্সি উইকেটে রুবেল, মুস্তাফিজ আর মাশরাফিদের বিপক্ষে কিউইদের লক্ষ্যটা তাই ২৫৮ রানের।

সংক্ষিপ্ত স্কোরকার্ডঃ

বাংলাদেশঃ ২৫৭/৯ (৫০ ওভার) সৌম্য সরকার ৬১, মুশফিকুর রহিম ৫৫, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ৫১, মোসাদ্দেক সৈকত ৪১, তামিম ইকবাল ২৩, সাকিব আল হাসান ৬। হামিশ বেনেট ৩/৩১, ইশ সোধি ২/৪০, জিমি নিশাম ২/৬৮

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

মুশফিক খেলেছেন এবং পেরেছেন

Read Next

বিতর্কিত সিদ্ধান্তে বেঁচে যাওয়া নিশামেই বাঁচলো নিউজিল্যান্ড

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
0
Share