বিবেচনার বাহিরেই থেকে যান মোহাম্মদ রফিক

rafique feature 1
Vinkmag ad

rafique e1494822643928

সাকলাইন মোস্তাক ছিল বাংলাদেশের সেরা স্পিন কোচ। তার অধীনেই অনেক সাফল্য পায় টিম বাংলাদেশের স্পিনাররা। বাংলাদেশের একসময় বড় অস্ত্রই ছিল এই স্পিন। মোহাম্মদ রফিক, আব্দুর রাজ্জাকরা সফলতার শুরুটা দেখিয়েছেন আর সাকিব-মিরাজরা সাফল্যের পাল্লা করে চলেছেন সেই পথেই ভারী।

এক সময় যেকোন প্রতিপক্ষের জন্যই আতংকের নাম ছিল বাংলাদেশের স্পিন। বেশীরভাগ ম্যাচেই বাংলাদেশ একাদশে দেখা যেতো মাত্র দুই পেসার। বাকী কাজ স্পিনাররাই করতো। বদলে যাওয়া বাংলাদেশের সাথে সাথে বদলে গেছে বাংলাদেশের পেস আক্রমনও। পরিস্থিতি বিবেচনায় চার পেসার নিয়ে খেলার সাহসও ইতিমধ্যে দেখিয়েছে বাংলাদেশ। আর নিয়মিত তিন পেসারতো খেলছেনই।

অভিজ্ঞ মাশরাফির সাথে, রুবেল, তাসকিন, মুস্তাফিজ, শফিউল, কামরুল ইসলাম রাব্বি, শুভাশীষ রায়রা বাংলাদেশের পেস আক্রমন ভারী করেছেন মাত্র ২ বছরই হল। এই ফাঁকে হারিয়ে গেল স্পিনের সেই জৌলুস। বিসিবির নজরদারির বাইরেও অনেকটা এই অংশটুকু। পেসারদের সাফল্য সত্যি আনন্দের খবর কিন্তু এর সাথে আমাদের শক্তির জায়গাটাও দুর্বল করার কোন মানে হয়না। যদিও সম্প্রতি সময়ের ফলাফল তা বলছেনা। স্পেশালিষ্ট স্পিনার সাকিবের সাথে স্পিন আক্রমনে সাফল্য আনছেন মোসাদ্দেক, নাসির কিংবা মাহমুদুল্লাহ। এইতো কয়েক সিরিজ ধরে পাওয়া যাচ্ছে মেহেদী মিরাজকেও। কিন্তু আগের সেই গুরুত্ব যেন এই খাতে আর আগের মত নেই।

শ্রীলংকান রুয়াল কালপেগকে বরখাস্তের পর অনেকদিনই স্পিন কোচহীন ভাবেই অনুশীলন করছে সাকিব, তাইজুল, মিরাজরা। এমনকি আগামী চ্যাম্পিয়নস ট্রফির আগে নিয়োগ পাচ্ছেনা নতুন কোনও কোচও। এই মুহূর্তে টাইগার দলের স্পিন কোচের নিয়োগ নিয়ে বিসিবি কিছুই ভাবছে না বলে জানালেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের পরিচালনা বিভাগের প্রধান আকরাম খান, ‘আমাদের শ্রীলঙ্কা সফরের সময় কোচ নেয়ার কথা ছিল। কিন্তু নিজের অসুবিধার জন্য নতুন কোচ আসতে পারেনি। তাই আপাতত কোচ নিয়োগ দিচ্ছি না। চ্যাম্পিয়নস ট্রফির পর ভালো একজন কোচ নিয়োগ দেব।’
দু:খজনক বিষয় বিদেশী কোচের আগে চাইলে বিসিবি মোহাম্মদ রফিককেও খন্ডকালীন স্পিন কোচের দায়িত্ব দিয়ে নিশ্চিন্ত থাকতে পারতো।

বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসেরই সেরা স্পিনারদের একজন মোহাম্মদ রফিক। নিয়েছেন দেশের হয়ে প্রথম ১০০ টেষ্ট উইকেট, ওয়ানডেতে ১২৫ উইকেটের মালিকও তিনি। রাজ্জাক-সাকিবদের আগে থেকে শুরু করে রাজ্জাক-সাকিবদের সাথে নিয়েও চালিয়ে গেছেন দেশের স্পিন বিভাগের নেতৃত্ব দেওয়ার কাজ। বিপিএলে ঢাকা গ্লাডিয়েয়টরস এর স্পিন কোচও ছিলেন এই গুনী ক্রিকেটার।

অথচ আগের কোচ রুয়ান কালপাগে বরখাস্ত হওয়ার পর থেকেই একজন স্পিন কোচ খুঁজে আসছে বিসিবি। তেমন দক্ষ কাউকে না পেয়ে ভারতের কিংবদন্তি স্পিনার অনিল কুম্বলের কাছে সাহায্য চেয়েছিল বোর্ড। আর কুম্বলে প্রস্তাব করেছিলেন স্বদেশী সুনীল যোশীর নাম। কিন্তু বিভিন্ন দিক বিবেচনায় যোশীকে নিয়োগ দেয়নি বিসিবি। আপাতত বিদেশী স্পিন কোচ নিয়োগ দেওয়ার প্রবল মানসিকতার কারনে চ্যাম্পিয়নস ট্রফিও বাংলাদেশ খেলবে স্পিন কোচ ছাড়াই। অন্যদিকে নজরের বাইরেই থেকে যাচ্ছে মোহাম্মদ রফিকের মত দেশীয় কিংবদন্তীরা।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

ইনজুরি থেকে ফিরে স্টেইন খেলতে চান বাংলাদেশের বিপক্ষে

Read Next

আয়ারল্যান্ডে মাঠের বাইরেও অস্বস্তি মাশরাফিদের

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
0
Share