ব্র্যাডম্যানের গড় ১০০ না হওয়ার দায় যার!

bradman
Vinkmag ad

বিশ্ব ক্রিকেটে সবার ওপরে যাকে স্থান দেওয়া হয়, তিনি স্যার ডোনাল্ড ব্র্যাডম্যান। যার নাম উঠলেই চলে আসে তার ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচটির স্মৃতি। শেষ ইনিংসে ব্র্যাডম্যানের দরকার ছিল ৪ রান। তাহলেই টেস্টে ১০০ গড় হয়ে যেত তাঁর। কিন্তু, তা হয়নি। কোনো রান না করেই ব্র্যাডম্যান ফিরেছিলেন ড্রেসিংরুমে। গড় ছুঁতে পারেনি তিন অঙ্ক, থেমে গিয়েছিল ৯৯.৯৪ তে।

GettyImages 139434027

তবে এতদিন পরে এসে ব্র্যাডম্যানের সতীর্থ ক্রিকেটার নিল হার্ভে জানিয়েছেন নতুন ঘটনা, বলছেন তার কারণেই হয়নি ব্র্যাডম্যানের ১০০ গড়।

আজ ৯০এ পা রাখলেন ব্র্যাডম্যানের সতীর্থ অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যান নিল হার্ভে। কিন্তু নিজেকে ব্র্যাডম্যানের সেই ঘটনার জন্য দায়ী করছেন কেন? বিদায়ী টেস্টের আগের টেস্টে ব্র্যাডম্যানের সাথে ব্যাটিং করেছিলেন হার্ভেও। সেই টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ব্র্যাডম্যান অপরাজিত ছিলেন ১৭৩ রানে। অন্য প্রান্তে ছিলেন হার্ভে। জয়ের জন্য অস্ট্রেলিয়ার দরকার তখন ৪ রান। স্ট্রাইকে থাকা হার্ভে চার মেরেই জেতালেন অস্ট্রেলিয়াকে। তখন কে জানত, এই বাউন্ডারিই হার্ভেকে সারা জীবন পোড়াবে অনুশোচনার আগুনে।

160445sir kalerkantho pic

হার্ভে বলেছেন, ‘আমি না হয়ে যদি ওই ৪ রান ব্র্যাডম্যান করতেন, তাহলেই গড় ১০০ হয়ে যেত। ল্যাঙ্কাশায়ারের সিম বোলার কেন ক্র্যান্সটন আমার পায়ের দিকে বল করেছিল। আমি মিড উইকেট দিয়ে পাঠিয়েছিলাম সীমানায়। সঙ্গে সঙ্গে জনতা মাঠে ঢুকে পড়েছিল। এখনও মনে রয়েছে, ব্র্যাডম্যান আমাকে দ্রুত নিরাপদে সাজঘরে ফেরার জন্য ডাকছিলেন।’

লিডসে ব্যাটিংয়ের সময় হার্ভে জানতেন না, ১০০ গড় পেতে ডনের সেই ৪ রানের সমীকরণটা। ডন ওভাল টেস্টে না খেললে ১০১.৩৯ ব্যাটিং গড় নিয়ে যে ক্যারিয়ার শেষ করতে পারতেন, সে কথাও অনেকে জানত না। সাদা চোখে তাই ডনের ১০০ গড় না হওয়ার জন্য হার্ভের নিজেকে ‘দোষী’ মনে করার ব্যাপারটি বাড়াবাড়ি মনে হতে পারে। কিংবা ডনের প্রতি তাঁর অতিরিক্ত শ্রদ্ধার বহিঃপ্রকাশ। কিন্তু সতীর্থের দৃষ্টিকোণ থেকে?

bradman 1024x535

নিজের ক্যারিয়ারের শেষ ইনিংসে ব্র্যাডম্যান ০ করবেন, এটাই বা কে ভেবেছিল! হার্ভে অবশ্য সেটা মেনে নিয়েছেন। ওভালে মাত্র এক ইনিংস ব্যাটিংয়ের সুযোগ পেয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। আর সেই ইনিংসেই ডনের ওই বিখ্যাত ‘ডাক’। যেন অলক্ষ্যের কোনো লেখকের লেখা ভীষণ সফল কোনো চিত্রনাট্যের বিয়োগান্ত পরিণতি। তখনকার দিনে ছিল না কোনো পরিসংখ্যানের হিসাব। আধুনিক যুগ হলে ব্র্যাডম্যানের রেকর্ডের কথা ভেবেই ব্যাটিং করতেন, জানালেন হার্ভে,

‘আমি নিজের ঘাড়ে দোষ নিতে রাজি। কিন্তু আমি জানতাম না পরের টেস্টে তিনি শূন্য রানে আউট হলে এরকম কিছু হবে। কেউ জানত না চার রান হলেই তার গড় ১০০ হবে। তখনকার দিনে পরিসংখ্যান তেমন বলা হতো না, টেলিভিশনও ছিল না, সংবাদমাধ্যমও এসব বলত না। এসব থাকলে হয়ত ইতিহাসটা অন্যরকমভাবে লেখা হতো। প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ডকে আমরা ৫২ রানে আউট করেছিলাম। তাই ব্র্যাডম্যান আউট হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ব্যাপারটা শেষ হয়ে গিয়েছিল। আর ব্যাট করার সুযোগ আসেনি।’

97 Desk

Read Previous

‘অলৌকিক কত কিছুই তো ঘটে’

Read Next

অনিশ্চয়তা বিপিএল মাঠে গড়ানো নিয়ে

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
0
Share