এপিএলে ‘২১৯ রান’ তাড়া করে জিতল কাবুল

1538771826983
Vinkmag ad

ঠিক যেন মনে রাখার মতই হলো প্রথমবারের মত মাঠে গড়ানো আফগানিস্তান প্রিমিয়াম লিগের (এপিএল) শুরুটা। টুর্নামেন্টের প্রথম আসরের প্রথম ম্যাচে দুর্দান্ত একটা উপভোগ্য ম্যাচই উপহার পেলো সমর্থকেরা। এদিন আগে ব্যাট করে পাকতিয়ার ছুড়ে দেওয়া ২১৯ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ৩ উইকেট হাতে রেখেই জয় তুলে নিয়েছে রাশিদ খানের কাবুল।

IMG 20181006 023610
দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ম্যাচ জিতিয়েছেন ইভান

ম্যাচে আগে ব্যাট করে ২১৯ রানে টার্গেট দেই পাকতিয়া। জবাব দিতে নেমে নিজেদের ইনিংসের শুরুটা বেশ আগ্রাসী ব্যাটেই করেন কাবুলের দুই ওপেনার লুক রনকি ও হযরতউল্লাহ জাজাই, তবে তা ধরে রাখতে পারেননি বেশিক্ষণ। ব্যক্তিগত ১৫ রানে থাকা রনকি দলীয় ২০ রানের মাথায় স্টাম্পিংয়ের ফাঁদে পড়লে ভাঙ্গে ওপেনিং পার্টনারশিপ। এরপর নতুন ব্যাটসম্যান জাভেদ আহমেদির সাথে ৩৫ রানের জুটি গড়ে বিদায় নেন জাজাইও।

তারপর নতুন ব্যাটসম্যান হিসাবে ক্রিজে আসেন লউরি ইভান। তিনিও শুরু থেকেই খেলতে থাকেন হাত খুলে। তাকে দীর্ঘসময় ধরে সঙ্গ দিতে পারেননি আর কোন ব্যাটসম্যান। মাঝে জাভেদ (২৫), শহিদুল্লাহ (১২) ও অধিনায়ক রাশিদ খান (২৪) বিদায় নিলেও খুব বেশি বেগ পেতে হয়নি কাবুলের। কারণ একপ্রান্ত আগলে রেখে রানের চাকাটা ঠিকই সচল রেখেছেন ইভান। পরে মুসা ও ফরিদকে নিয়ে সেরেছেন জয়ের বাকি আনুষ্ঠানিকতা।

শেষ ওভারে জয়ের জন্য ৩ রান প্রয়োজন হলে, ওভারের শুরুর বলেই চার মেরে দলের জয়ে নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়ে ইভান। ফলে ৫ বল ও ৩ উইকেট হাতে রেখে টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচেই জয় তুলে নেই কাবুল। ইভান শেষপর্যন্ত অপরাজিত থাকেন ৭৯ রানে। মাত্র ৩৯ বলে ৭৯ রানের ইনিংসটি এই ইংলিশম্যান সাজিয়েছেন ৫টা চার ও ৬টা ছয়ের সাহায্যে।

IMG 20181006 020747
ব্যাট হাতে উজ্জ্বল ছিলেন সিকান্দার রাজাও

আর আগে সংযুক্ত আরব আমিরাতের শারজাহর শারজাহ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন স্টেডিয়ামে টসে জিতে প্রতিপক্ষকে আগে ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানান কাবুলের অধিনায়ক রাশিদ খান। পাকতিয়ার হয়ে দলের গোড়াপত্তন করতে আসেন দুই ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ শেহজাদ ও এহসানউল্লাহ জানাত। ক্রিজে এসে অবশ্য পার্ণেলের করা প্রথম ওভার থেকে ব্যাটে কোন রান তুলতে পারেননি এহসানউল্লাহ। তবে দ্বিতীয় ওভারে থেকে খুনে ব্যাটিংয়ের রানের চাকা সচল করেন এই দুই ব্যাটসম্যান।

চার-ছক্কার ফুলঝারিতে উদ্বোধনি জুটিতে মাত্র ৯ ওভার থেকেই দুজন স্কোর বোর্ডে যোগ করেন ১০১ রান। ব্যক্তিগত ২৭ রানে থাকা এহসানউল্লাহ স্পিনার জাহির শেহজাদের প্রথম শিকার হয়ে ফিরলে ভাঙ্গে এই জুটি। একই ওভারের দুই বল পরে অবশ্য সাজঘরে ফিরেছেন আরেক ওপেনার শেহজাদও। তবে আউট হওয়ার আগে মাত্র ৩৯ বলে ৬৭ রানের বিধ্বংসী ইনিংসটি তিনি জিনিয়েছিলেন ৭টা চার ও ৫টা ছয়ের সাহায্যে।

IMG 20181006 024137
ছবিঃ আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ড

জোড়া আঘাতের পরেও অবশ্য রান তোলার গতি থেকে একটুও পিছিয়ে আসেনি পাকতিয়া। তিনে ব্যাট করতে নামা ক্যামেরুন ডেলপোর্ট কিছুটা ধরে খেললেও অন্যপ্রান্তে নিজেদের ব্যাটে রানের ফোয়ারা ছুটিয়েছেন জিম্বাবুইয়ান তারকা অলরাউন্ডার সিকান্দার রাজা। মাত্র ৩৩ বলে পূরণ করেছেন নিজের অর্ধশতক। মাঝে অবশ্য ডেলপোর্ট ১৯ ও দলের আইকন ক্রিকেটার শহিদ আফ্রিদি ফিরে গেছেন ১ রান করে।

ফিফটি করার পর আরো বেশি আগ্রাসী হয়েছেন রাজা, শেষ সাত বলে এক বাউন্ডারির সাথে ওভার বাউন্ডারি হাঁকিয়েছেন ৩টি। যার মধ্যেতো আবার পার্ণেলের করা একটি বল ছয় বানাতে গিয়ে পাঠিয়েছেন স্টেডিয়ামের বাইরে। পরে মাত্র ৪০ বলে অপরাজিত থেকেছেন ৭৮ রানে। ফলে নির্ধারিত ওভার শেষে ৪ উইকেট হারিয়ে ২১৮ রানে পুঁজি পায় পাকতিয়া প্যান্থার। তবে এদিন বলহাতে নিজের চার ওভারের কোটা পূরণ করলেও উইকেট শূন্য থেকেছেন কাবুলের অধিনায়ক রাশিদ খান।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

জন্মদিনে ভক্তদের কাছে মাশরাফির চাওয়া

Read Next

‘আমার আঙুলটা আর হান্ড্রেড পার্সেন্ট ভালো হবে না’

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
0
Share