দাপট দেখিয়েই পাকিস্তানকে হারিয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ

received 237083240295946
Vinkmag ad

আজকের মহা গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ছিল না দলের সেরা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান। তারপরও মাঠে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার নেতৃত্বে  গোটা টিম অসাধারণ ক্রিকেট প্রদর্শনী করে। এশিয়ার সেরা হবার লড়াইয়ে পাকিস্তানকে ৩৭ রানে হারিয়ে ভারতের পর বাংলাদেশও পৌছে গেল ফাইনালে। 

received 1663341897109182

টসে জিতে টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত। নির্ধারিত ৫০ ওভারের কোটা শেষের ৭ বল আগেই  ২৩৯ রানে অল আউট হয় বাংলাদেশ। ২৪০ রানের জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নামে পাকিস্তান। প্রথম ওভারেই স্পিন এনে চমক দিয়ে বাংলাদেশের শুরু। মেহেদী হাসান মিরাজের পঞ্চম বলে ডাউন দ্যা উইকেটে এসে মিড অনের উপর দিয়ে খেলতে গেলে রুবেলের অসাধারণ এক ক্যাচে পরিনত হন ফখর জামান।

নতুন বলে ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে বোলিং করতে এসে দ্বিতীয় বলেই বাবর আজমকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেন কাটার মাস্টার মুস্তাফিজুর রহমান।  

এই ম্যাচে ব্যাটিং অর্ডারে পরিবর্তন এনে চার নম্বর পজিশনে ব্যাট করতে আসেন পাকিস্তানের অধিনায়ক সারফরাজ আহমেদ। থাকতে পারেননি বেশি সময়। মুস্তাফিজের দ্বিতীয় শিকারে পরিনিত হওয়ার আগে ৭ বলে করেন ১০ রান। দলীয় রান তখন মাত্র ১৮।

শোয়েব মালিক উইকেটে আসার পর ওপেনার ইমাম উল হককে সাথে নিয়ে ইনিংস মেরামতের কাজ করেন। এই সময়ে বাংলাদেশের অকেশনাল বোলাররা জেকে বসে পাকিস্তানের ব্যাটসম্যানদের উপর। একের পর এক ডট খেলতে থাকেন দুই ব্যাটসম্যান। মাহমুদউল্লাহ ও সৌম্য এসময়ে রানের চাকা আটকে রাখেন।

২১তম ওভারের প্রথম বলে রুবেলকে মারতে গিয়ে কাভারের মাশরাফির দর্শনীয় ক্যাচে পরিনত হন মালিক। প্রায় শূন্যে ভেসে একহাতে তালুবন্দী করেন এ ক্যাচ। দলের রান তখন ৮৫।

received 1931953483777328
মাশরাফির এই ক্যাচই বদলে দেয় দলের বডিল্যাঙ্গুয়েজ

মাশরাফির ক্যাচে যেন বদলে যায় গোটা বাংলাদেশ দলের সব ক্রিকেটারদের বডি ল্যাঙ্গুয়েজ। মাঠে যেন অন্য এক বাংলাদেশ। গ্রাউন্ড ফিল্ডিংয়ে অসাধারণ এক প্রদর্শনী দেখাতে থাকে তারা। সাথে বোলারও উজ্জীবিত হয়ে বোলিং করতে থাকেন। এখান থেকেই বাংলাদেশ ম্যাচে এগিয়ে যায়।

শাদাব ২৪ বলে ৪ রান করে বিদায় নিলেও তখনো বাংলাদেশ দলের জয়ের বাঁধা হয়ে থাকে ওপেনার ইমাম উল হক। আসিফ আলীকে নিয়ে এগিয়ে নিতে থাকেন পাকিস্তানের ইনিংস। একবার আসিফ মুস্তফিজের কাটারে বিভ্রান্ত হয়ে উইকেটরক্ষকের কাছে ক্যাচ তুলে দেন। অপ্রস্তুত বদলি কিপার লিটন দাস রাখতে পারেননি সে ক্যাচ। এরপরই হাত খুলে খেলতে থাকে দু’ব্যাটসম্যান।

ইমাম-আসিফের ৭১ রানের জুটি ভাঙ্গে ৪০তম ওভারের দ্বিতীয় বলে মেহেদির বলে লিটনের কাছে স্টাম্পিং হয়ে। ৪৭ বলে ৩১ রান করে আউট হন আসিফ আলী।

ঠিক এর পরের ওভারে মাহমুদউল্লাহ’র বলে আবারও স্টাম্পিং। তবে এবার দলকে একাই টানতে থাকা ইমাম। ফেরার আগে ২ চার ও ১ ছয়ে ১০৫ বলে ৮৩ রান করেন এ ওপেনার। এরপর আর কেউ দায়িত্ব নিতে পারেনি।  

দ্বিতীয় স্পেলে মুস্তাফিজ যেন অপ্রতিরোধ্য হয়ে ওঠেন। একে একে তুলে নেন মোহাম্মদ নেওয়াজ ও হাসান আলীর উইকেট। ১৮৬ রানে ৯ উইকেট হারিয়ে ফেলে পাকিস্তান। নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষে ৯ উইকেট হারিয়ে ২০২ রান তুলতে সামর্থ্য হয় পাকিস্তান। বাংলাদেশ ম্যাচ জিতে নেয় ৩৭ রানে। সেই সাথে এশিয়া কাপের ফাইনাল নিশ্চিত হয় তাদের। ফাইনালে শক্তিশালী ভারতের মুখোমুখি হবে তারা।

এর আগে টসে জিতে দলের মূল স্পিনার ও অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে ছাড়াই মাঠে নামে বাংলাদেশ। ইনিংসের শুরুটা মোটেই ভালো করতে পারেনি টাইগাররা। দলীয় মাত্র ৫ রানেই ফিরে যান এক বছর পর ওয়ানডে দলে আসা সৌম্য সরকার। ব্যক্তিগত শূন্য রানেই ফেরেন তিনি। ১২ রানেই নেই বাংলাদেশের তিন উইকেট। খাদের কিনারা থেকে দলকে দারুণভাবে টেনে তুলেছেন মিঠুন-মুশফিক। কিন্তু মুশফিকুর রহিম নিজে ফিরলেন ১ রানের আক্ষেপ নিয়ে। আউট হয়েছেন যে ৯৯ রানে।  শেষদিকে বাংলাদেশও পড়ে যায় ব্যাটিং বিপর্যয়ে। শেষ ৪৩ বলে বাংলাদেশ করে মাত্র ৪৩ রান। ৭ বল বাকি থাকতেই ২৩৯ রানে অল আউট হয় তারা

বল হাতে পাকিস্তানের জুনায়েদ খান সর্বোচ্চ ৪টি, ২টি করে উইকেট নিয়েছেন হাসান আলী ও শাহীন শাহ আফ্রিদি। শাদাব খানের ঝুলিতে গেছে এক উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

বাংলাদেশঃ ২৩৯/১০ (৪৮.৫ ওভার); মুশফিক ৯৯, মিঠুন ৬০, মাহমুদউল্লাহ ২৫, মিরাজ ১২, কায়েস ৯, লিটন ৬, মুমিনুল ৫; জুনায়েদ ৪/২০, শাহীন ২/৪৭, হাসান ২/৬০, শাদাব ১/৫২

পাকিস্তানঃ ২০২/৯ (৫০ ওভার); ফখর ১, ইমাম ৮৩, বাবর ১, সারফরাজ ১০, মালিক ৩০, আসিফ ৩১, শাহিন ১৪*

মেহেদি ২৮/২, মুস্তাফিজ ৪৩/৪, রুবেল ৩৮/১, মাহমুদউল্লাহ ৩৮/১, সৌম্য ১৯/১  

ফলাফলঃ বাংলাদেশ ৩৭ রানে জয়ী

ম্যান অফ দ্যা ম্যাচঃ মুশফিকুর রহিম

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

মুশফিকের ‘১’ রানের আক্ষেপ, বাংলাদেশের অন্তত ‘২০’ রানের

Read Next

‘আশা করি, ছেলেরা ভালো ফিল্ডিংয়ের গুরুত্ব বুঝবে।’

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
0
Share