চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি, পেসার ও স্পিনারদের শ্রেষ্ঠত্বের লড়াই

featured photo1 12
Vinkmag ad

সেরা আট দল, দুই গ্রুপে আঠারো দিনে মোট পনেরটি ম্যাচ এবং এক দলের সেরাদের সেরা হওয়ার লড়াই, হ্যা, বলছি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির কথা। যেটাকে মিনি বিশ্বকাপও বলা হয়, কারণ এই দলগুলোর বিশ্বকাপ খেলা মোটামুটি নিশ্চিত। ১লা জুন থেকে শুরু হতে যাওয়া এ টুর্নামেন্ট চলবে ১৮ই জুন পর্যন্ত, ঐদিন ওভাল মাঠে সেরা দুই দল লড়বে টাইটেল চ্যাম্পিয়নশীপের জন্য। এখন পুরোদমে চলছে প্রাকপ্রস্তুতি, সবগুলো দলই ইতিমধ্যে তাদের দলের সদস্যদের নাম ঘোষণা করেছে। কেমন তাদের দল, তাদের বোলিং লাইনআপ, আমাদের আজকের বিষয় বোলিং ডিপার্টমেন্ট।

ইংল্যান্ডের স্যাতসেতে আবহাওয়া আর বাতাসে আর্দ্রতা বেশি থাকায় পেসাররা সবসময় বাড়তি সাহায্য পেয়ে থাকেন। গতি,বাউন্সের সাথে সুইং আর রিভার্স সুইং এর বিরুদ্ধে রীতিমত যুদ্ধকরেটিকে থাকতে হয় ব্যাটসম্যানদেরকে। স্পিনাররাও কম যাননা, লাইন লেন্থ ঠিক রেখে বল করতে পারলে স্পিনাররাও ইংল্যান্ডের মাটিতে ভয়ংকর অধ্যায়ের নাম।

এবারের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে সবগুলো দলে যেমন গতির ঝড় তোলা পেসার আছে তেমনি আছে সুইং আর কাটার বোলার, আছে মায়াবী ঘাতক সময়ের সফল কিছু স্পিনার। তাই আশা করা যায় এবারের টুর্নামেন্টটা হতে যাচ্ছে পেসার ও স্পিনারদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণের লড়াই।

মিচেল স্টার্ক, প্যাট কামিন্স, জশ হ্যাজলউড, ট্রেন্ট বোল্ট, মিচেল ম্যাকক্লানাঘান, টিম সাউদি, লাসিথ মালিংগা, মোহাম্মদ আমির, জুনায়েদ খান, ওয়াহাব রিয়াজ, রুবেল হোসেন, তাসকিন আহমে্দ, মোস্তাফিজুর রহমান, ক্রিস মরিস, কাগিসো রাবাদা, মর্নে মরকেল, বেন স্টোকস, উমেশ যাদব, ভুবনেশ্বর কুমাররা যখন সুইং এর সাথে গতির ঝড় তুলে যেমন সকল ফোকাস নিজেদের দিকে রাখার চেষ্টা করবেন তখন স্পিনারও কিন্তু কম যাননা, কারণ ওয়ার্ল্ডক্লাস সাকিব আল হাসান, রবিচন্দন অশ্বিন, মেহেদী হাসান মিরাজ, রবিন্দ্র জাদেজা, ইমাদ ওয়াসিম, শাদাব খান, ইমরান তাহির, লাকসান সন্দাকান, মিচেল সান্টানার, অ্যাডাম জাম্পা, মঈন আলী, আদিল রশীদ নিশ্চয়ই কাউকে ছেড়ে কথা বলবেনা। স্পিনাররা ও পেসারদের সাথে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে যাবে। সত্যিই ভীষণ এক রোমাঞ্চকর টুর্নামেন্ট দেখার অপেক্ষায় ক্রিকেট বিশ্ব।

একনজরে প্লেয়ারদের সংক্ষিপ্ত ওডিআই ক্যারিয়ার

পেসার

মাশরাফি বিন মর্তুজা (বাংলাদেশ)-২২৫ উইকেট (১৭২ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ২৬ রানে ৬ উইকেট

মুস্তাফিজুর রহমান(বাংলাদেশ)-৩৬ উইকেট (১৪ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৪৩ রানে ৬উইকেট

রুবেল হোসেন(বাংলাদেশ)-৮৮ উইকেট (৬৯ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ২৬ রানে ৬ উইকেট

তাসকিন আহমেদ(বাংলাদেশ)-৪১ উইকেট (২৬ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ২৮ রানে ৫ উইকেট

শফিউল ইসলাম(বাংলাদেশ)-৬৩ উইকেট (৫৬ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ২১ রানে ৪ উইকেট

হাসান আলী(পাকিস্তান)-২৯ উইকেট (১৬ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা-৩৮ রানে ৫ উইকেট

জুনায়েদ খান(পাকিস্তান)-৮৬ উইকেট (৫৮ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা-১২ রানে ৪ উইকেট

মোহাম্মদ আমির(পাকিস্তান)-৫০ উইকেট (৩২ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ২৮ রানে ৪ উইকেট

ওয়াহাব রিয়াজ(পাকিস্তান)-১০২ উইকেট (৭৮ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৪৬ রানে ৫ উইকেট

লাসিথ মালিংগা(শ্রীলংকা)-২৯১ উইকেট (১৯১ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৩৮ রানে ৬ উইকেট

সুরাঙ্গা লাকমল(শ্রীলংকা)-৮৪ উইকেট (৬১ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৩০ রানে ৪ উইকেট

নুয়ান কুলাসেকারা(শ্রীলংকা)-১৯৯ উইকেট (১৮৩ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ২২ রানে ৫ উইকেট

নুওয়ান প্রদীপ(শ্রীলংকা)-১৮ উইকেট (১৭ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ২১ রানে ২ উইকেট

অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস(শ্রীলংকা)-১১১ উইকেট (১৮০ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ২০ রানে ৬ উইকেট

থিসারা পেরেরা(শ্রীলংকা)-১২৭ উইকেট (১১৭ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৪৪ রানে ৬ উইকেট

ট্রেন্ট বোল্ট(নিউজিল্যান্ড)-৮৭ উইকেট (৪৮ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা – ৩৩ রানে ৬ উইকেট

মিচেল ম্যাকক্লানাঘান(নিউজিল্যান্ড)-৮২ উইকেট (৪৮ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৫৮ রানে ৫ উইকেট

জেমস নিশাম(নিউজিল্যান্ড)-৩২ উইকেট (৩৫ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৪২ রানে ৪ উইকেট

টিম সাউদি(নিউজিল্যান্ড)-১৫৫ উইকেট (১১৬ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৩৩ রানে ৭ উইকেট

কোরি এন্ডারসন(নিউজিল্যান্ড)-৫৫ উইকেট (৪৪ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৬৩ রানে ৫ উইকেট

প্যাট কামিন্স(অস্ট্রেলিয়া)-৫১ উইকেট (২৮ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৪১ রানে ৪ উইকেট

জন হেস্টিংস(অস্ট্রেলিয়া)-৪০ উইকেট (২৮ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৪৫ রানে ৬ উইকেট

জোশ হ্যাজলউড(অস্ট্রেলিয়া)-৫৫ উইকেট (৩৫ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৩১ রানে ৫ উইকেট

মোয়েসেস হেনরিকস(অস্ট্রেলিয়া)-৬ উইকেট (৮ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৩২ রানে ৩ উইকেট

জেমস প্যাটিনসন(অস্ট্রেলিয়া)-১৬ উইকেট (১৫ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা-  ৫১ রানে ৪ উইকেট

মিচেল স্টার্ক(অস্ট্রেলিয়া)- ১২৯ উইকেট (৬৫ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ২৮ রানে ৬ উইকেট

ক্রিস মরিস(দক্ষিণ আফ্রিকা)-২৯ উইকেট (২৩ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৩১ রানে ৪ উইকেট

ওয়েইন পারনেল(দক্ষিণ আফ্রিকা)-৯০ উইকেট (৬১ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৪৮ রানে ৫ উইকেট

কাগিসো রাবাদা(দক্ষিণ আফ্রিকা)-৫৭ উইকেট (৩৪ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ১৬ রানে ৬ উইকেট

মর্নে মরকেল(দক্ষিণ আফ্রিকা)-১৮১ উইকেট (১০৮ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৪৬ রানে ৫ উইকেট

বেন স্টোকস(ইংল্যান্ড)-৪৬ উইকেট (৫৩ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৬১ রানে ৫ উইকেট

ডেভিড উইলি(ইংল্যান্ড)-৩৩ উইকেট (২৭ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৩৪ রানে ৪ উইকেট

ক্রিস ওকস(ইংল্যান্ড)-৮৫ উইকেট (৬১ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৪৫ রানে ৬ উইকেট

জেক বল(ইংল্যান্ড)-১৪ উইকেট (৮ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৫১ রানে ৫ উইকেট

মার্ক উড(ইংল্যান্ড)-১৫ উইকেট (২৩ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৪৬ রানে ৩ উইকেট

লিয়াম প্লাংকেট(ইংল্যান্ড)-৭৬ উইকেট (৫১ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৪০ রানে ৪ উইকেট

ভুবনেশ্বর কুমার(ইন্ডিয়া)-৬১ উইকেট (৫৯ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৮ রানে ৪ উইকেট

জাস্প্রিত বুমরাহ(ইন্ডিয়া)-২২ উইকেট (১১ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ২২ রানে ৪ উইকেট

উমেশ যাদব(ইন্ডিয়া)-৮৮ উইকেট (৬৩ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৩১ রানে ৪ উইকেট

মোহাম্মদ শামি(ইন্ডিয়া)-৮৭ উইকেট (৪৭ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৩৫ রানে ৪ উইকেট

 

স্পিনার

সাকিব আল হাসান(বাংলাদেশ)-২২১ উইকেট (১৬৯ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৪৭ রানে ৫ উইকেট

মেহেদী হাসান মিরাজ(বাংলাদেশ)-৪ উইকেট (৩ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৩৪ রানে ২ উইকেট

মঈন আলী(ইংল্যান্ড)-৪৪ উইকেট (৫২ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৩২ রানে ৩ উইকেট

আদিল রশীদ(ইংল্যান্ড)-৬১ উইকেট (৪৩ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ২৭ রানে ৫ উইকেট

ইমরান তাহির(দক্ষিণ আফ্রিকা)-১২৭ উইকেট (৭৪ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৪৫ রানে ৭ উইকেট

অ্যাডাম জাম্পা(অস্ট্রেলিয়া)- ৩৪ উইকেট (২২ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ১৬ রানে ৩ উইকেট

ইমাদ ওয়াসিম(পাকিস্তান)-২৪ উইকেট (২১ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ১৪ রানে ৫ উইকেট

শাদাব খান(পাকিস্তান)-৫ উইকেট (৩ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৫২ রানে ২ উইকেট

রবিন্দ্র জাদেজা(ইন্ডিয়া)-১৫১ উইকেট (১২৯ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৩৬ রানে ৫ উইকেট

রবিচন্দন অশ্বিন(ইন্ডিয়া)-১৪৫ উইকেট (১০৫ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ২৫ রানে ৪ উইকেট

জিতান প্যাটেল(নিউজিল্যান্ড)-৪৭ উইকেট (৪২ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ১১ রানে ৩ উইকেট

মিচেল সান্টানার(নিউজিল্যান্ড)-৩৫ উইকেট (৩২ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৩১ রানে ৩ উইকেট

লাকসান সন্দাকান(শ্রীলংকা)-৫ উইকেট (৬ম্যাচ), ক্যারিয়ার সেরা- ৩৩ রানে ২ উইকেট

 

একনজরে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির দলগুলোর স্কোয়াড

বাংলাদেশ: তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, ইমরুল কায়েস, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, সাব্বির রহমান, মাহমুদুল্লাহ, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মাশরাফি মর্তুজা, মোস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন, তাসকিন আহমেদ, সানজামুল ইসলাম, মেহেদী হাসান ও শফিউল ইসলাম।

পাকিস্তান: আহমেদ শেহজাদ, আজহার আলী, সরফরাজ আহমেদ (অধিনায়ক), বাবর আজম, ফাহিম আশরাফ, ফখর জামান, হাসান আলী, ইমাদ ওয়াসিম, জুনায়েদ খান, মোহাম্মদ আমির, মোহাম্মদ হাফিজ, শাদাব খান, শোয়েব মালিক, উমর আকমল ও ওয়াহাব রিয়াজ।

শ্রীলঙ্কা: অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস (অধিনায়ক), উপুল থারাঙ্গা, নিরঞ্জন ডিকওয়েলা, কুশল মেন্ডিস, কুশল পেরেরা, চামারা কাপুগেদারা, এসেলা গুনারত্নে, দিনেশ চান্ডিমাল, লাসিথ মালিংগা, সুরাঙ্গা লাকমল, নুয়ান কুলাসেকারা, নুওয়ান প্রদীপ, থিসারা পেরেরা, লাকসান সন্দাকান ও সিকুগে প্রসন্ন।

নিউজিল্যান্ড: কেন উইলিয়ামসন (অধিনায়ক), কোরি এন্ডারসন, ট্রেন্ট বোল্ট, নিল ব্রুম, কলিন দ্য গ্র্যান্ডহোম, মার্টিন গাপটিল, টম লাথাম, মিচেল ম্যাকক্লানাঘান, অ্যাডাম মিলনে, জেমস নিশাম, জিতান প্যাটেল, লুক রঙ্কি, মিচেল সান্টনার, টিম সাউদি ও রস টেলর।

অস্ট্রেলিয়া: স্টিভেন স্মিথ, ডেভিড ওয়ার্নার, প্যাট কামিন্স, অ্যারন ফিঞ্চ, জন হেস্টিংস, জোশ হ্যাজলউড, ট্র্যাভিস হেড, মোয়েসেস হেনরিকস, ক্রিস লিন, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, জেমস প্যাটিনসন, মিচেল স্টার্ক, মারকাস স্টোনিস, ম্যাথু ওয়েড, ও অ্যাডাম জাম্পা।

দক্ষিণ আফ্রিকা: হাশিম আমলা, কুইন্টন ডি কক (উইকেটরক্ষক), ফাফ ডু প্লেসিস, এবি ডি ভিলিয়ার্স (অধিনায়ক), জেপি ডুমিনি, ডেভিড মিলার, ক্রিস মরিস, ওয়েইন পারনেল, আন্দিল ফেহ্লুক্বায়ো, কাগিসো রাবাদা, ইমরান তাহির, ডোয়াইন প্রোটোরিয়াস, কেশব মহারাজ, ফারহান বেহারদিয়েন ও মর্নে মরকেল।

ইংল্যান্ড: ইয়ন মরগান (অধিনায়ক), মঈন আলী, জনি বেয়ারস্টো, জেক বল, স্যাম বিলিংস, অ্যালেক্স হেলস, জস বাটলার, লিয়াম প্লাংকেট, আদিল রশীদ, জো রুট, জেসন রায়, বেন স্টোকস, ডেভিড উইলি, ক্রিস ওকস ও মার্ক উড।

ইন্ডিয়া: বিরাট কোহলি, রোহিত শর্মা, শেখর ধাওয়ান, যুবরাজ সিং, আজিঙ্কা রাহানে, কেদার যাদব, মহেন্দ্র সিং ধোনি, হার্দিক পান্ডিয়া, মানিশ পাণ্ডে, রবিন্দ্র জাদেজা, রবিচন্দন অশ্বিন, ভুবনেশ্বর কুমার, জাস্প্রিত বুমরাহ, উমেশ যাদব, মোহাম্মদ শামি।

আশা করা যায় এক জমজমাট টুর্নামেন্ট দেখতে যাচ্ছে ক্রিকেটবিশ্ব।

 

Shihab Ahsan Khan

Shihab Ahsan Khan, Editorial Writer- Cricket97

Read Previous

বাতিলের খাতায় পাকিস্তান সিরিজ

Read Next

শেষটা ভালো হলোনা মিসবাহ’র

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
0
Share