ছয়ে ব্যাট করতে নামার কারণ ব্যাখ্যা ইমরুলের

1537767369213
Vinkmag ad

‘এলেন, দেখলেন, জয় করলেন’। বিষয়টা অনেকটা এমনই দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশ জাতীয় দলের ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েসের জন্য। হঠাৎ করেই চলমান এশিয়া কাপের মাঝপথে পেলেন ডাক। সুযগোটাও মিলে গেলো একাদশে। তবে নিজের স্বভাবসুলভ ওপেনিংয়ে নামা হয়নি ইমরুলের। সবাইকে চমকে দিয়েই আসলেন ছয় নাম্বারে ব্যাট করতে। বিশেষ পরিকল্পনা থেকেই যে এমন সিদ্ধান্ত তা আঁচ করা যাচ্ছিল ম্যাচের সময়ই। ম্যাচের পর ইমরুল নিজেই জানিয়েছেন নেপথ্যের কারণ।

একদিনের ক্রিকেটে ১১ মাস পর এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান এবার যখন আবার দলে আচমকা ডাক পেলেন তখন চারিদিক থেকে ধেয়ে আসছিল সমালোচনার তীর। বাংলাদেশ থেকে বিমানে উড়ে গিয়ে ১৪০ কিঃমিঃ বাস ভ্রমনের পর মহা-গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে বিশ্রাম না নিয়েই মাঠে নেমেই ব্যাট হাতে দিয়েছেন সকল সমালোচনার জবাব।

ছয় নাম্বারে যখন ব্যাট করতে এলেন তখন দলের ২১তম ওভারে মাহমুদউল্লাহর সাথে যাত্রা শুরু। যখন এই জুটি থামলো তখন পেরিয়ে গেছে ৪৭ ওভার। ১২৮ রানের পার্টনারশিপ গড়ে দলকে বিপদ থেকে রক্ষা করে মাহমুদউল্লাহ যখন ফিরলেন, তখন অনেকটা নিরাপদ লক্ষ্যের দিকে বাংলাদেশ দল। এই সময়ে এই জুটি নাম লেখালো ৬ষ্ঠ উইকেটে দলের সর্বোচ্চ সংগ্রহের তালিকায় সবার উপরে। পিছনে ফেলে দিলো ১৯৯৯ সালে উইন্ডিজের বিপক্ষে গড়া আল শাহরিয়ার ও খালেদ মাসুদের ১২৩ রানের জুটি। দলের আড়াইশো রানের পুঁজিতে ইমরুলের অবদান অপরাজিত ৭২ রান।

280564
আফগানিস্তানের সাথে রেকর্ড জুটি গড়ার পথে ইমরুল-রিয়াদ

তবে বিস্ময়কর ব্যাপার হলো এর আগে নিজ ক্যারিয়ারের ৭০ ম্যাচে একবারও তিনের নিচে খেলা হয়নি ইমরুল কায়েসের। অথচ ম্যাচের দিন সকালেই জানতে পারেন ওপেনিং বা তিন নম্বরে নয়, তাকে খেলতে হবে ছয় নম্বরে। বিশেষ পরিকল্পনা থেকেই যে এমন সিদ্ধান্ত আঁচ করা যাচ্ছিল ম্যাচের সময়ই। ম্যাচের পরদিন ফুরফুরে ইমরুল নিজেই জানিয়েছেন নেপথ্যের কারণ।

ইমরুলকে ছয়ে নামানো হয় রাশিদ খানের কথা ভেবেই। এমনিতে বাঁহাতি ব্যাটসম্যানদের বিপক্ষে কিছুটা দুর্বল রাশিদ। ইমরুলের তাকে চেনাও আছে বেশ। এমন ভাবমা থেকেই তাকে পাঠানো হয় ছয়ে। এমনটা জানিয়েই ইমরুল বলেন, ‘আমাকে বলা হয়েছিল সেসময় রাশিদ-মুজিব থাকবে। এই দুইজন স্পিনারকে খেলার জন্য। যেহেতু বিপিএলে রাশিদের সাথে একই টুর্নামেন্টে খেলেছি, ওই হিসেব করে কোচ আমাকে বলছিল, তুমি একটু হিসেব করে খেলতে পারবা।’

280567
অপরাজিত ৭২ রানের ইনিংস খেলার পথে ইমরুল

ওপেনার হয়েও এত নিচে খেলায় কোন অস্বস্তি দেখছেন না ইমরুল। বরং ওপেনাদেরই নাকি সব তালিম ধাতস্থ করতে হয়, ‘আমার মনে হয় ওপেনিং ব্যাটসম্যানরা যখন বড় ইনিংস খেলতে থাকে, তখন তারা সব পরিস্থিতিতে ব্যাটিং করার মতো উপযুক্ত হয়ে উঠে। কেননা বড় ইনিংসে খেলতে হলে ওপেনার ব্যাটসম্যানদের শুরুতে, মাঝে এবং ডেথ ওভারে খেলতে হয়। এ কারণে আমার ব্যক্তিগত ভাবে মনে হয় না ৬ কিংবা ৪ নম্বর নিয়ে কোন সমস্যা আছে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

‘যখনি গ্যালারীতে চিৎকার শুনি, তখনি পা দু’টাকে বলি তৈরি হও’

Read Next

‘ভাই আমাকে বলেছে, যেটা ভালো মনে করিস সেটা কর’

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
0
Share