হাথুরুসিংহে ৩-০ বাংলাদেশ

featured photo1 21
Vinkmag ad

প্রথমে ত্রিদেশীয় সিরিজ (ওয়ানডে), মাঝে টেস্ট সিরিজ, শেষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ। তিন সিরিজেই জয়ী বাংলাদেশের সাবেক কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহের দল শ্রীলঙ্কা।

টি-টোয়েন্টি ইতিহাসে নিজেদের সেরা ইনিংসটা খেলেছে গত ম্যাচেই। আজ ম্যাচ হারের সাথে সিরিজ হারটা বাঁচাতে হলে গড়তে হতো নতুন রেকর্ড, ছাড়াতে হতো নিজেদেরকেও। সেইটা করে দেখাতে পারেনি বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। লঙ্কানদের পাহাড়সম ২১০ রানের নিচে চাপা পড়ে খেই হারিয়েছে টাইগাররা, থেমেছে ১৩৫ রানেই। ফলে ৭৫ রানে হেরেছে ম্যাচ, খুইয়েছে টি-টোয়েন্টি সিরিজটাও।

273358

পালা বদলের খেল বোধহয় একেই বলে। বছরের শুরু আর শেষের সিরিজটা বাদ দিলে ২০১৭ সালটা নেহাত মন্দ কাটেনি বাংলাদেশের জন্য। টিম শ্রীলঙ্কার অবস্থান ছিল একদম উল্টোটা, এক বছরে রেকর্ড হারের কালিমা লেগেছে ওদের গায়ে। অথচ বছর ঘুরতেই উল্টেছে পাশার দান, বাংলাদেশের পা রেখেই ভাগ্য ফিরিয়ে লঙ্কানরা। তিন ফরম্যাটের তিন সিরিজই পকেটে ভরলো ওরা।

এদিন সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে প্রথমবারের মতো কোন আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে নেমে টসে জিতে আগে বল করার সিদ্ধান্ত নেয় স্বাগতিক দলের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। বাংলাদেশের নেওয়া এই সিদ্ধান্ত যে সময়োপযোগী ছিলো না তা সিলেটের এই ব্যাটিং ফ্রেন্ডলি উইকেটে ব্যাট করতে নেমে ভালোই বুঝিয়েছেন লঙ্কান দুই ওপেনার গুনাথিলাকা ও কুশল মেন্ডিস।

ম্যাচের বয়স বাড়ার সাথে সাথে বাংলাদেশের বোলারদের উপর চড়াও হয়ে খেলতে থাকেন এই দুই ব্যাটসম্যান। পাওয়ার-প্লের ছয় ওভারেই তুলে নেয় ৬৩ রান। এতে অবশ্য কম অবদান ছিল না বাংলাদেশের ফিল্ডারদেরও। বারবার সুযোগ দেওয়া এই দুই ব্যাটসম্যানের ক্যাচ ছেড়েছেন তামিম-রিয়াদরা, রান আউটের সহজ সুযোগ মিস করেছেন আরিফুলও। সেই সুবিধাটা কাজে লাগিয়েই উদ্বোধনি জুটিতে ৯৮ রান যোগ করে এই দুই ব্যাটসম্যান।

273356
অভিষেকে খরুচে বোলিং করে রাহি নিয়েছেন ১ উইকেট

এরপর সৌম্যর বলে গুনাথিলাকা ৪২ রানে ফিরে গেলেও নতুন ব্যাটসম্যান থিসারা পেরেরার সাথে ৫১ রানের জুটিতে এই সিরিজের নিজের ব্যাক টু ব্যাক ফিফটিটা তুলে নেয় কুশল। তারপর রাহির বলে সৌম্যর হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরার আগে পেরেরা খেলে যান ৩১ রানের ধ্বংসাত্মক এক ইনিংস। পেরেরার আউটের পর প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন কুশলও, যাওয়ার আগে খেলে যান ১৬৭ মত স্ট্রাইক রেটে ৭০ রানের ইনিংস। সেখান থেকে থারাঙ্গা ও সানাকার ব্যাটে নির্ধারিত ওভার শেষে ২১০ রানের বিশাল সংগ্রহ পায় শ্রীলঙ্কা।

২১১ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই আগের ম্যাচের অর্ধশতক পাওয়া দুই ব্যাটসম্যান সৌম্য ও মুশফিকের উইকেট হারিয়ে ব্যাকফুটে চলে যায় স্বাগতিকরা। এরপর নতুন ব্যাটসম্যান মিঠুনও দাঁড়াতে পারেনি বেশিক্ষণ, ফিরেছেন মাত্র ৫ রান করে। সেখান থেকে তামিম ও মাহমুদউল্লাহ চেষ্টা চালালেও যেতে পারেননি বেশিদূর। দুই ব্যাটসম্যানের ৩৭ রানের জুটি ভাঙ্গে তামিমের ২৯ রানে বিদায়ের মধ্য দিয়ে।

273362

এর পরপরেই আরিফুলও হাটেন সতীর্থদের দেখানো পথেই। মাত্র ৬৮ রানেই ৫ উইকেট হারিয়ে ধুকতে থাকা বাংলাদেশ সেখান থেকে রিয়াদ-সাইফের ব্যাটে ৪২ রানে পার্টনারশিপে মাত্র ৩ রানের ব্যবধানে দু’জনই আউট হয়ে যাওয়ার পর ১৩৫ রানেই থামে বাংলাদেশের ইনিংস। ফলে ৭৫ রানের জয় নিয়ে ম্যাচের সাথে সিরিজ জয়টাও নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়ে হাথুরুসিংহের শ্রীলঙ্কা।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

শ্রীলঙ্কাঃ ২১০/৪ (২০ ওভার) কুশল মেন্ডিস ৭০, গুনাথিলাকা ৪২, থিসারা পেরেরা ৩১, মোস্তাফিজুর রহমান ১/৩৯, সৌম্য সরকার ১/২৫, সাইফউদ্দিন ১/৪১

বাংলাদেশঃ ১৩৫/১০ (১৮.৪ ওভার) মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ৪১, তামিম ইকবাল ২৯, সাউফউদ্দিন ২০, শিহান মাদুশঙ্কা ২/২৩, গুনাথিলাকা ২/৩ জীবন মেন্ডিস ১/৮

ফলাফলঃ শ্রীলঙ্কা ৭৫ রানে জয়ী

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

রেকর্ড গড়ে জিততে হবে বাংলাদেশকে

Read Next

‘এরকম খেলতে থাকলে একই ফলই হবে’

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
0
Share