সিলেটে যুবদল নিতে পারেনি একশো রানও

154545
Vinkmag ad

পচেফস্ট্রুমে মূল দল দক্ষিণ আফ্রিকার বোলিং তোপে গুটিয়েছে মাত্র ৯০ রানে। সিলেটে অনুর্ধ্ব-১৯ দলও হেঁটেছে বড় ভাইদের পথেই। সংগ্রহের দিক দিয়ে মুশফিকদের চেয়েও কম রানে ফিরেছেন সাইফ হাসানরা। আর এই বাংলাদেশের যুবাদের অল্প সংগ্রহে আটকে দিয়ে আফগানিস্তান অনুর্ধ্ব-১৯ দলে ফিরেছে সিরিজের। 

তৃতীয় ওয়ানডেতে বাংলাদেশ অনুর্ধ্ব-১৯ দল অলআউট হয়েছে ৭৫ রানের লজ্জাজনক সংগ্রহে। পাঁচ উইকেট হারিয়ে আফগানদের স্কোর ৮১। দ্বিতীয় ম্যাচ বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়ায় সিরিজে এসেছে ১-১ এ সমতা।

সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে সাইফ হাসানদের শুরু থেকেই চেপে ধরেন আফগান বোলাররা। উদ্বোধনী জুটি ভেঙ্গেছে কোন রান সংগ্রহ না করেই। অধিনায়ক সাইফ হাসান ফিরেছেন ২২ রান করে। তার পর আর একজনই কেবল করতে পেরেছেন দুই অঙ্কের রান। ছয়ে নেমে মাহিদুল ইসলাম করেছেন ২৫ রান।

বাকি সবার স্কোর যেন টেলিফোন ডিজিট। ১৮ রান সংগ্রহ করেছেন দলের বাকি নয়জন মিলে। সাইফ-মাহিদুল জুটিতে এসেছে ৪৭ রান। আর আফগানদের সুবাদে পাওয়া গেছে অতিরিক্ত ১০ রান। ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় বাংলাদেশের যুবাদের সাজঘরে ফিরতে হয়েছে নিজেদের ইতিহাসের চতুর্থ সর্বনিম্ন সংগ্রহ নিয়ে।

সব বোলাররাই উইকেট দিয়েছেন আফগানদের স্কোরকার্ডে। সর্বোচ্চ তিন উইকেট নিয়েছেন নাভিন-উল-হক। প্রথম ম্যাচে ৭৭ রানের গুটিয়ে যাওয়ার প্রতিশোধ আফগানরা নিলো ৭৫ রানে স্বাগতিকদের অলআউট করে।

জবাবে অতিথিরাও ৩৪ রানে হারিয়ে ফেলে ৪ উইকেট। ছোট্ট একটা সম্ভাবনা তৈরি করেছিল বাংলাদেশ কিন্তু আব্দুল রসুলের দৃঢ়তা আফগানদের এনে দিয়েছে জয়। অপরাজিত ৩৫ রানে সফরকারীদের ম্যাচ জিতিয়ে তবেই মাঠ ছেড়েছেন রসুল।

সংক্ষিপ্ত স্কোরকার্ডঃ

বাংলাদেশ অনুর্ধ্ব-১৯ঃ ৭৫ (৩০.৩ ওভার) মাহিদুল ২৫, সাইফ ২২, পিনাক ৬, হৃদয় ৫, আফিফ ১, রবিউল ৪, নাইম ১।  নাভিন ৩/২৪, তারিক ২/১০, ওমারাজি ১/৫, মুজিব ১/১০, জাজাই ১/২৪

আফগানিস্তান অনুর্ধ্ব-১৯ঃ ৫১/৫ (১৭.২ ওভার) রসুল ৩৫*, ওয়াদাত ১৫, মালিকজাই ৯, নাভিদ ৬। নাইম ২/২১, আফিফ ১/১০, অনিক ১/১৪

ফলাফলঃ আফগানিস্তান ৫ উইকেটে জয়ী।

ম্যান অফ দ্যা ম্যাচঃ নাভিন-উল-হক।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

লাঞ্চের আগেই দ. আফ্রিকার জয়

Read Next

ছয় সপ্তাহের জন্য মাঠের বাইরে মরকেল

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
0
Share