বেয়ারস্টোর অপরাজিত শতকে ধবলধোলাই উইন্ডিজরা

match report 33
Vinkmag ad

বৃষ্টির কারণে মাঠে গড়ায়নি দ্বিতীয় ওয়ানডে। ইংলিশদের সিরিজ জিততে তাতে সমস্যা হয়নি একটুও। আর পাঁচ ম্যাচ সিরিজের শেষটাতে জনি বেয়ারস্টোর অপরাজিত শতকে ভর করে ক্যারিবীয়দের স্বাগতিকরা করেছে চুনকাম। ৪-০ ব্যবধানে সিরিজ জয়ী ইংল্যান্ড শেষ ম্যাচ জিতেছে ৯ উইকেটের বড় ব্যবধানে। 

268626

সাউথাম্পটনে শুক্রবারের ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজ নির্ধারিত ৫০ ওভারে সংগ্রহ করে ২৮৮ রান। ম্যাচের ১২ ওভার বাকি থাকতেই মাত্র এক উইকেট হারিয়েই ইংলিশরা পৌঁছে যায় লক্ষ্যে।

ব্যাটিংয়ে নেমেই দুই স্বাগতিক উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান রীতিমত তান্ডব চালানো শুরু করেন সফরকারী বোলারদের উপর। ১৫ ওভারেই চলে আসে শতরান। জেসন রয় কিংবা জনি বেয়ারস্টো কেউই কারো থেকে কম যাননি। রান তুলেছেন সমানতালে।

১৫৬ রানের উদ্বোধনী জুটি গড়েছেন দুজন। শতকের চেয়ে মাত্র চার দূরে দাঁড়িয়ে তখন জেসন রয়। মিগুয়েল কামিন্সের বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়ে থেমে যায় রয়ের সেঞ্চুরির স্বপ্ন। ৭০ বল খেলে ১১ চার আর এক ছয়ে জেসন রয়ে বিদায় নেন ৯৬ রানে।

বাকি পথটা জো রুটকে নিয়ে পাড়ি দিতে একদমই কষ্ট হয়নি বেয়ারস্টোর। ১৩৮ রান তুলেছেন স্কোরবোর্ডে টেস্ট কাপ্তানকে সঙ্গে নিয়ে। অপরাজিত ৪৬ রান করে রুট অর্ধশতকের দেখা না পেলেও বেয়ারস্টো ঠিকই তুলে নিয়েছেন নিজের দ্বিতীয় ওয়ানডে শতক। ৯০ বলে দেখা পেয়েছেন শতকের। আর দলকে  জিতিয়ে মাঠে ছেড়েছেন ১১৪ বলে ১৪১ রানে অপরাজিত থেকে। ইনিংস সাজিয়েছেন ১৭টি চারে।

শুক্রবারের ম্যাচে শুরুতে টস জিতে দ্যা রোজ বলে অতিথিদের ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন ইয়ন মরগান। ক্রিস গেইলের ঝড়ো শুরুতে উইন্ডিজদের শুরুটাও ছিল দাপুটে। ব্যক্তিগত ৪০ রানে গেইলের ফিরে যাওয়ার পর ক্যারিবীয়দের ব্যাটিং ভারটা নিজের কাঁধে তুলে নেন শাই হোপ। ৯৫ বলে হোপের ব্যাট থেকে এসেছে ৭২ রান।

মারলন স্যামুয়েলস আর অধিনায়ক সুনীল অ্যামব্রিস ছোট্ট ক্যামিওতে ভর করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ পায় লড়াই করার পুঁজি। অবশ্য বেয়ারস্টো আর জেসন রয়ের ঝড়ে ২৮৯ রানের লক্ষ্যটাও হয়ে যায় নস্যি।

অপরাজিত শতকের সুবাদে ম্যাচ সেরার পুরস্কারে পুরস্কৃত হন বেয়ারস্টো। আর মইন আলির হাতে তুলে দেয়া হয় সিরিজ সেরার পুরস্কার।

সংক্ষিপ্ত স্কোরকার্ডঃ

ওয়েস্ট ইন্ডিজঃ ২৮৮/৬ (৫০ ওভার) শাই হোপ ৭২, গেইল ৪০, অ্যামব্রিস ৩৮*, কাইল হোপ ৩৩, স্যামুয়েলস ৩২। প্ল্যাঙ্কেট ২/৫৪, মইন ১/৩৬, রশিদ ১/৪২

ইংল্যান্ডঃ ২৯৪/১ (৩৮ ওভার) ব্যেয়ারস্টো ১৪১*, রয় ৯৬, রুট ৪৬*। কামিন্স ১/৭০

ফলাফলঃ ইংল্যান্ড ৯ উইকেটে জয়ী।

ম্যান অফ দ্যা ম্যাচঃ জনি বেয়ারস্টো (ইংল্যান্ড)।

ম্যান অফ দ্যা সিরিজঃ মইন আলি (ইংল্যান্ড)।

সিরিজঃ ইংল্যান্ড ৪-০ ব্যবধানে জয়ী।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

হঠাৎ ইনিংস ঘোষণায় অপ্রস্তুত ছিল বাংলাদেশ

Read Next

তৃতীয় দিনে টাইগারদের ব্যাটিং চ্যালেঞ্জ শুরু

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
0
Share