‘সবাইকে চুপ করানোর একটাই উপায়, রান করা’

featured photo1 1 47
Vinkmag ad

আসছে দক্ষিণ আফ্রিকা সফর। এই ‘দক্ষিণ আফ্রিকা’ নামটাই বাংলাদেশ দলের একজনের কাছে অন্যরকম গুরুত্ববহন করবেই। তিনি সৌম্য সরকার। ২০১৫ সালে ঘরের মাঠে দক্ষিণ আফ্রিকাকে সিরিজ হারিয়ে বাংলাদেশ দলের সেরা পারফর্মারটা ছিলেন এই সৌম্যই। তবে, ব্যাটটা ইদানিং অদ্ভুত আচরণ করছে সৌম্যের সাথে। এই রান আছে তো, এই নেই। তাই সমালোচনাটাও কম সইতে হচ্ছেনা তাকে। আর তার জবাবটা সৌম্য দিতে চান রান করেই। 

রানভাগ্যটা আয়ারল্যান্ডে কথা বলেছিল সৌম্যের পক্ষে। কিন্তু চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিটা কাটিয়েছেন ক্ষরায়। আবার নিউজিল্যান্ডে টেস্টে নেমে পেয়েছেন এক অর্ধশতক, ভারত সিরিজে ছিলোনা রান। ঠিক পরপরই শ্রীলঙ্কা সিরিজে দুই টেস্টের চার ইনিংসে তিন ফিফটি অথচ ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়া সিরিজে রানের ঝুলি একদমই খালি। SOumya practise এর ছবি ফলাফল

এমন খারাপ সময়েই শুরু হয় সমালোচনার ঝড়টা। আর সেটা সবচেয়ে বেশি হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে। নিউজফিডে সৌম্য’র নিন্দায় বর্তমান বাংলাদেশের ফেসবুক বেশ চাউর। তবে, সৌম্য গুটিয়ে রাখছেন নিজেকে। ফেসবুক থেকে থাকছেন দূরেই দূরেই। সব জবাব দিতে চান ব্যাট দিয়েই।

“এই সময়টায় ফেইসবুকে কম যাওয়ার চেষ্টা করি। যেহেতু আমাদের দেশে কেউ ভালো খেললে তাকে নিয়ে অনেক আলোচনা হয়, খারাপ খেললেও কথা হবেই। এটাকে ইতিবাচকভাবে দেখি। ভালো-মন্দ যাই হোক, সবাই আমাকে নিয়েই কথা বলছে। এসব ভেবে মানসিকভাবে শক্ত থাকার চেষ্টা করি। সমালোচকদের চুপ করানোর একটাই উপায় আছে, সেটা হলো রান করা। আমি কঠোর পরিশ্রম করছি রান করার জন্য।”

শ্রীলঙ্কায় টেস্ট সিরিজে মোট রান এসেছিল ১৯৫ আর অস্ট্রেলিয়া সিরিজে সেটা কমে মাত্র ৬৫। অর্থাৎ, অর্ধেকেরও কম। অথচ সৌম্য জানালেন শ্রীলঙ্কা সফরের মত করেই উইলো ঘুরিয়েছিলেন ঘরের মাঠে ক্যাঙ্গারুদের বিরুদ্ধেও! একটা ভুলই তাকে দেয়নি সফল হতে।

“শ্রীলঙ্কাতে যেভাবে খেলেছি, এখানেও সেভাবে খেলতে চেয়েছি। কারণ শ্রীলঙ্কার উইকেট আর আমাদের উইকেট প্রায় একই রকম। এ কারণেই ওই ধরনের ব্যাটিংই করেছি। যতটুকু সময় উইকেটে ছিলাম, ব্যাটেও বল আসছিলো। কিন্তু একটা ভুলের কারণে আউট হয়ে যাচ্ছিলাম।”

ভুলটা নিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন এই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান। পরের সফরে যেন এই ভুলই ‘দুঃস্বপ্ন’ না হয়ে ওঠে, সেদিকে মনোযোগের কোন কমতি রাখছেন না সৌম্য। “এটা নিয়ে কাজ করছি। দেখছি যে, এটা আমার ভুল নাকি ওরা বেশি ভালো বল করেছে। এই ভুলটা যাতে ওখানে (দক্ষিণ আফ্রিকায়) গিয়ে না হয়, সেই চেষ্টা করছি।”

ঘরের মাঠে দক্ষিণ আফ্রিকা এমনিতে বেশ কঠিন প্রতিপক্ষ। তবে সৌম্যের মত আগ্রাসী খেলোয়াড়ের জন্য প্রোটিয়াদের উইকেটটা দারুণ কার্যকরী। বল বেশ ভালভাবেই ব্যাটে আসে। আর সৌম্যও জয় করতে চান সেই চ্যালেঞ্জটা।

“কঠিনের মধ্য দিয়েই ভালো করতে পারলে সেটা বেশি মর্যাদা পাবে। নিজেকেও আত্মবিশ্বাসী মনে হবে। ওদের মাটিতে, ওদের কন্ডিশনে গিয়ে ভালো কিছু করতে পারলে আলাদা মজা থাকবে। চেষ্টা করব ভালো কিছু করার এবং পিছনের ম্যাচগুলো ভুলে যাওয়ার।”

সব পেছনে ফেলে সৌম্য যদি ফিরতে পারেন তার সেই পুরোনো ‘রুদ্র’ মুর্তিতে তবে টিম বাংলাদেশের জন্য দক্ষিণ আফ্রিকা সফরটা হয়তো ততটা কঠিন নাও হতে পারে। আর ছুটির মাঝেও অনুশীলনটা বন্ধ না করে প্রস্তুতি চালিয়ে যাওয়া সৌম্যের শক্ত হয়ে যাওয়া চোয়ালটা দেখেও আঁচ করা যায় রানে ফেরার জন্য কি ব্যাকুলতা তার।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

এনসিএলের দুই রাউন্ডের সূচি

Read Next

পেরেরা ঝড়ে সিরিজে ফিরলো বিশ্ব একাদশ

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
0
Share