ইংল্যান্ড আর আয়ারল্যান্ডে ‘ভিভিআইপি’ নিরাপত্তা বাংলাদেশ দলের

নিউজিল্যান্ডের সন্ত্রাসী হামলার পর নিরাপত্তা ইস্যুতে নড়েচড়ে বসা বিসিবি আয়ারল্যান্ড আর ইংল্যান্ডে চায় বাড়তি নিরাপত্তা। রাষ্ট্রীয় আইনে বাঁধা থাকায় ইংল্যান্ড বিসিবির চাহিদা পূরণ করতে পারছেনা বলে জানালেও আয়ারল্যান্ড হয়েছিলো রাজি। তবে ক্রিকেটারদের সুরক্ষা নিশ্চিতে বিসিবি নিজস্ব অর্থায়নে নিশ্চিত করতে যাচ্ছে ভিভিআইপি নিরাপত্তা, যা দেশের বাইরে কেবল প্রধানমন্ত্রী কিংবা খুব গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা পেয়ে থাকেন।

এ প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন জানান, ‘আয়ারল্যান্ড ও ইংল্যান্ডে অবস্থানকালে আমরা খেলোয়াড়দের ভিভিআইপি নিরাপত্তা নিশ্চিত করবো। নিউজিল্যান্ড ঘটনার পর নিরাপত্তা আমাদের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমদের এ ব্যাপারে বেশ সতর্ক এবং চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে।’

নিউজিল্যান্ড থেকে ফেরার পর থেকেই বোর্ড সভাপতি এই ইস্যুতে বেশ সজাগ ছিলেন। দেশের বাইরে খেলতে যাওয়ার আগে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিতের কথা বলেছেন বারবার। শুধু বলাতেই সীমাবদ্ধ নয়, আয়ারল্যান্ড ও ইংল্যান্ড বোর্ডের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ করে চেয়েছেন নিজেদের অতিরিক্ত নিরাপত্তা। ইংল্যান্ড না করলেও আয়ারল্যান্ড বলেছে তারা প্রস্তুত।

ইংল্যান্ড বাড়তি নিরাপত্তায় সন্তোষজনক জবাব না দিলেও আনুষ্ঠানিকভাবে আইসিসির নিরাপত্তা ব্যবস্থার অধীনে যাওয়ার আগেই দুজন নিরাপত্তা কর্মী দিবে বলে আশ্বাস দিয়েছে, কিন্তু সেক্ষেত্রে নিজেদের পকেটের অর্থই খরচ করতে হবে বিসিবিকে। আর ওই দুইজনকে বাড়তি পয়সা দিয়ে আয়ারল্যান্ড থেকেই দলের সাথে রাখতে যাচ্ছে বিসিবি।

ফাইল ছবি

পাপন জানান, ‘আমাদের সব ঠিকঠাক মত চলছে কীনা সেজন্য থাকবে নিজস্ব নিরাপত্তা কর্মকর্তা। আইসিসি আমাদের দুজন সিকিউরিটি কর্মকর্তা দেওয়ার কথা বিশ্বকাপ চলাকালীন। তাদের দুজনকেই আমরা নিজেদের অর্থায়নে আয়ারল্যান্ডে উড়িয়ে আনছি, তাদের সাথে সার্বক্ষণিক তদারকি করবেন বিসিবির নিরাপত্তা কমিটির একজন সদস্য।’

এদিকে ইংল্যান্ডে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে ইতোমধ্যে সেদেশের বাংলাদেশ অ্যাম্বাসির সাথে বেসরকারি নারাপত্তা বাহিনী নিয়োগের ব্যাপারে কথাবার্তা বলে রেখেছেন জানিয়ে পাপন বলেন, ‘চার সদস্য বিশিষ্ট বেসরকারি নিরাপত্তা বাহিনী নিয়োগের ব্যাপারে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছি এবং ইংল্যান্ডে আমাদের অ্যাম্বাসির সাথে নিয়মিত যোগাযোগ করছি। প্রধানমন্ত্রী কিংবা খুবই উচ্চপদসস্থ (ভিভিআইপি) কেউ আসলে তারা যেমন নিরাপত্তা দেয়, ক্রিকেটাররাও সেরকমটা পাবে।’

অ্যাডমিন

Read Previous

‘বাংলাদেশ না মনে করে পাকিস্তান ভাবলে ওর পাকিস্তানেই থাকা উচিৎ’

Read Next

‘আমি মাশরাফির মতো অধিনায়ক দেখিনি’

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।