অস্থায়ী কোচ হবার প্রশ্নে সুজনের ‘না’

কোচ স্টিভ রোডসের বরখাস্তের পর শ্রীলঙ্কা সফরের বাকি মাত্র সপ্তাহ দুয়েক। এই অল্প সময়ে স্থায়ী কোচ যে বিসিবি নিয়োগ দিতে পারছেনা একপ্রকার নিশ্চিতই। সেক্ষেত্রে দেশীয় কাউকে কোচ করেই লঙ্কা সিরিজ শেষ করবে বিসিবি অনুমেয়ই, সেক্ষেত্রে বাংলাদেশ ক্রিকেটের ‘একের ভেতর অধিক’ খ্যাত বর্তমান ম্যানেজার খালেদ মাহমুদের নামটাই উচ্চারিত হচ্ছে বেশি। তবে তিনি সরাসরি জানিয়েছেন এমন অস্থায়ী দায়িত্ব নিতে চাননা আর।

ফাইল ছবি (সংগ্রহীত)

স্টিভ রোডসের সাথে চুক্তিটা আগামী বছর অস্ট্রেলিয়া টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পর্যন্ত ছিল। তবে চলতি ওয়ানডে বিশ্বকাপে দলের ব্যর্থতার দায়ভার সরাসরি তার কাঁধে চাপিয়ে বিসিবি গতকাল (৮ জুলাই) বরখাস্ত করে টাইগারদের প্রধান কোচ স্টিভ রোডসকে। এই ইংলিশম্যানের বিদায়ে অভিভাবক শূন্য বাংলাদেশ ক্রিকেটের প্রথম চ্যালেঞ্জ লঙ্কা সফর। অতীতে এমন পরিস্থিতিতে খালেদ মাহমুদকে পাশে পেয়েছে বিসিবি।

এমনিতেই বিসিবির নানা পদে জড়িয়ে আছেন বলে বারবারই অভিযোগ উঠেছে সাবেক অধিনায়কের বিরুদ্ধে। দলের বিভিন্ন ভূমিকায় দেখা যাওয়া সুজন জাতীয় পর্যায়ে কোচ হিসেবে কাজ করেন নিয়মিতই ফলে জাতীয় দলের অস্থায়ী কোচ ভাবনায় তাকে ভাবাটাই স্বাভাবিক। তবে সুজন জানিয়েছেন তার অনাগ্রহের কথা, দ্রুতই বাংলাদেশ পেতে যাচ্ছে নতুন কোচ ইঙ্গিত খালেদ মাহমুদের।

অস্থায়ী কোচ হওয়া তার জন্য সঠিক ব্যাপার নয় উল্লেখ করে সুজন বলেন,” এটা নিয়ে আমারও ভাবার ব্যাপার আছে। বারবার এক সিরিজের জন্য অস্থায়ী কোচের দায়িত্ব নিতে ইচ্ছুক নই। এটা আমার জন্য ঠিক না।”

কোচিং তার পেশার বড় একটা অংশুজুড়ে আছে, ফলে দায়িত্ব নেওয়ার প্রস্তুতি সবসময়ই থাকে উল্লেখ করে এই সাবেক পেসার যোগ করেন,” বলতে পারছিনা কি হবে। তবে পেশাদার কোচ হিসেবে আমি সবসময় প্রস্তুত থাকি। আগেও একবার অস্থায়ী কোচের দায়িত্ব পেয়েছি। আবারও ভারপ্রাপ্ত হয়ে কাজ করবো কিনা ভাবনার বিষয় অন্যদিকে বোর্ডও আমাকে নিয়ে সেভাবে ভাববে কিনা এটা একটা কথা।”

নিজের বর্তমান দায়িত্বও বেশ গুরুত্বপূর্ণ, তবে কোচিং নিয়েও নিজের ব্যখ্যায় সুজন বলেন,” আমি দলটার ম্যানেজার। সেরা খেলোয়াড়কে বাছাই করতেই আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা থাকে দল নির্বাচনকালে। এরপর কোচিং বিভাগের কাজ। ১৫ জনের স্কোয়াড থাকে, কোচরা পরিকল্পনা করে একাদশে কাদের খেলাবেন, কাদের খেলাবেন না, কার কি দায়িত্ব হবে এসব বিষয়ে।”

বিসিবির এই প্রভাবশালী কর্মকর্তা জানিয়েছেন দ্রুতই কোচ নিয়োগ দিবে বিসিবি। আর বিশ্বকাপ শেষে দলগুলোর সাথে কোচদের চুক্তি শেষ পর্যায় বলে ভালো কোচ পাওয়ার ব্যাপারেও আশাবাদী সুজন,” সঠিক সময়েই কোচ পেয়ে যাব বলে আশা করছি। বিসিবি ভালো কাউকে পেতেই চেষ্টা করছে। বিশ্বকাপ শেষে অনেক কোচের চুক্তি শেষ হবে। আমরা দ্রুত যোগাযোগ করতে পারলে ভালো কাউকেই পাবো বলে আমার বিশ্বাস। “

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

উইজডেনের সেরা তিনে সাকিব আল হাসান

Read Next

মুমিনুলের দেড়শতে প্রথম দিন বিসিবি একাদশের

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।