শিহাব আহসান খান

১০ রান করা মিলার হলেন ম্যাচসেরা!

যেই ম্যাচে দল ২০ ওভারে করেছে ১৯২ রান, সেখানে কোন বাউন্ডারি ছাড়া ১২ বলে ১০ রান করেন ডেভিড মিলার। প্রতিপক্ষ দল যখন ব্যাট করেছে তখন বল হাতে নেননি। তবুও ম্যাচসেরা হয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার ডেভিড মিলার!

অবাক হচ্ছেন? এমন অবাক হবার মতোই ঘটনা ঘটেছে কেপটাউনে। দক্ষিণ আফ্রিকা ও পাকিস্তানের মধ্যকার প্রথম টি-টোয়েন্টিতে মূলত ম্যাচসেরা হয়েছেন একজন ফিল্ডার। ৪ ক্যাচ ও দুই রানআউট করা ফিল্ডার ডেভিড মিলার পেয়েছেন ম্যাচসেরার তকমা।

কেপটাউনের নিউল্যান্ডসে টসে জিতে আগে বল করার সিদ্ধান্ত নেন পাকিস্তান দলপতি শোয়েব মালিক। চতুর্থ ওভারেই সাফল্যের মুখ দেখে পাকিস্তান। কুইন্টন ডি ককের ইনজুরির সুবাদে দলে ঢোকা জিহান ক্লোয়েট ইমাদ ওয়াসিমের বলে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ১২ বলে ১৩ রান করে। এরপর অপর ওপেনার রেজা হেন্ড্রিক্স ও তিনে নামা প্রোটিয়া দলপতি ফাফ ডু প্লেসিস হতাশা উপহার দিতে থাকেন পাকিস্তানকে।

ফাফ ডু প্লেসিস
রেজা হেন্ড্রিক্স

দুজন মিলে ১২ ওভার ১ বল উইকেটে থেকে যোগ করেন ১৩১ রান। ৪৫ বলে ৬ চার ও ৪ ছয়ে ৭৮ রান করে ফাফ ডু প্লেসিস আউট হলে ভাঙে এই জুটি। উসমান খান শিনওয়ারির করা ঐ ওভারেই কোন রান না করে ফিরে যান ভ্যান ডার ডুসেন। নিজের করা পরের ওভারে ৪১ বলে ৮ চার ও ২ ছয়ে ৭৪ রান করা রেজা হেন্ড্রিক্সকেও ফেরান শিনওয়ারি।

এরপর ক্রিস মরিস, ডেভিড মিলাররা ব্যাট হাতে সুবিধা করতে পারেননি। ২০০ পার করা স্কোর গড়ার মতো অবস্থাতে থাকলেও প্রোটিয়াদের ইনিংস থামে ৬ উইকেটে ১৯২ রানের মাথায়। ৩ উইকেট নিয়ে পাকিস্তানের সফল বোলার শিনওয়ারি। ১ টি করে উইকেট নেন ইমাদ ওয়াসিম, হাসান আলি ও ফাহিম আশরাফ।

উসমান খান শিনওয়ারি

১৯৩ রান স্কোরবোর্ডে জমা করার লক্ষ্যে খেলতে নামা পাকিস্তান শুরুতেই ধাক্কা খায়। ইনিংসের ৩য় বলেই ৪ রান করা ফখর জামান সাজঘরের পথ ধরেন। বাবর আজম ও হুসাইন তালাত সেই ধাক্কা সামলান আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করে। ২য় উইকেট জুটিতে ৫৭ বল মোকাবেলায় ৮১ রান করেন এই দুজন। শামসির বলে ৩২ বলে ৪০ রান করা হুসাইন তালাত ফেরার পরের ওভারে ২৭ বলে ৩৮ রান করা বাবর আজম ফেরেন রানআউটের শিকার হয়ে। ডিরেক্ট থ্রোতে স্টাম্প ভেঙে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ম্যাচে ফেরান ডেভিড মিলার।

এরপর আসিফ আলি (১৩), ইমাদ ওয়াসিম (৪), ফাহিম আশরাফ (৮) রা ফিরে যান দ্রুত। এই তিনজনকে ফেরাতেই ক্যাচ ধরেন মিলার। এরপর ২ রান করা মোহাম্মদ রিজওয়ানকে করেন রান আউট।

পাকিস্তানকে ম্যাচে রেখেছিলেন অধিনায়ক শোয়েব মালিক। শেষ ওভারে ৩১ বলে ৪৯ রান করে মালিক সাজঘরে ফেরেন ক্রিস মরিসের বলে। ক্যাচ নেন যথারীতি মিলার, এর আগে হাসান আলিকে ফেরাতেও ক্যাচ নিয়েছিলেন তিনি।

৯ উইকেটে ১৮৬ রান করে থামে পাকিস্তানের রানের চাকা। ৬ রানে জয়লাভ করে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা। ৬ ডিসমিসাল (৪ ক্যাচ, ২ রান আউট) নিয়ে ম্যাচসেরা হন মিলার।

আগামী রোববার জোহানেসবার্গে হবে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি।

মন্তব্য

CRICKET- 97
ইয়াসির শাহ ম্যাচে ফেরালেন পাকিস্তানকে

বার্বাডোজ টেস্টের চতুর্থ দিনের শেষ সেশনে দারুণভাবে ম্যাচে ফিরেছে পাকিস্তান। হাত থেকে ফোঁসকে যেতে থাকা ম্যাচে পাকিস্তান নিয়ন্ত্রণ নিতে পেরেছে...

ইয়াসির শাহ

বিস্তারিত

CRICKET- 97
ইয়াসির শাহে নাকাল ওয়েস্ট ইন্ডিজ

জ্যামাইকার কিংস্টনে বৃষ্টি বিঘ্নিত ওয়েস্ট ইন্ডিজ-পাকিস্তান টেস্টের চতুর্থ দিন শেষে চালকের আসনে সফরকারী পাকিস্তান। প্রথম ইনিংসে চার অর্ধশতকে মিসবাহ উল...

ইয়াসির শাহ

বিস্তারিত

CRICKET- 97
শেষটা ভালো হলোনা মিসবাহ’র

পাকিস্তানের সবচেয়ে সফল টেস্ট অধিনায়ক মিসবাহ উল হকের সাদা পোশাকে শেষটা ঠিক সুখকর হলোনা। নিজের খেলা শেষ টেস্টের ১ম ইনিংসে...

বিস্তারিত

  • Developed By :