৯৭ ডেস্ক

বিশ্বকাপে প্রতিটি দলের সাথে আলাদা দুর্নীতি দমন কর্মকর্তা

ক্রিকেট বিশ্বায়নের সাথে এর রন্ধ্রে রন্ধ্রে প্রবেশ করেছে দুর্নীতি, কাড়ি কাড়ি অর্থের প্রলোভনে পা বাড়িয়ে ক্যারিয়ারই ধ্বংস হয়েছে বহু ক্রিকেটার-কোচের। দুর্নীতি দমনে আইসিসি বরাবরই অনুসরণ করে আসছে জিরো টলারেন্স নীতি, অপরাধীকে দিচ্ছে সর্বোচ্চ শাস্তি। আসন্ন বিশ্বকাপে আইসিসির অন্যান্য ইভেন্টের মত এবারও থাকছে অ্যান্টি করাপশন টিম। তবে একটা জায়গায় এবার আসছে ভিন্নতা।

অন্যান্য সময় পুরো টুর্নামেন্ট দেখভালের দায়িত্বে থাকতো আইসিসির নিয়োগ দেওয়া একটি নির্দিষ্ট দল। যারা অংশ নেওয়া প্রতিটি দলের সাথে ভাগ হয়ে কাজ করতো। এতে নিয়োগকৃত কর্মকর্তাদের যেমন চাপে পড়তে হত, তেমনি ক্রিকেটাররাও যথাযথভাবে সাহায্য করতে পারতেন না।

মূলত ম্যাচ অনুযায়ী দায়িত্ব ভাগ হয়ে যাওয়াতে একটা নির্দিষ্ট দলকে নির্দিষ্ট কর্মকর্তার পক্ষে পুরো টুর্নামেন্ট জুড়ে নজরে রাখা সম্ভব হতনা। দুর্নীতি বিরোধী কার্যক্রম পেতনা উপযুক্ত গতি। তাই এবার প্রতিটি দলের জন্য আলাদা আলাদা দুর্নীতি দমন কর্মকর্তা নিয়োগ দিচ্ছে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা। যেখানে টুর্নামেন্টের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত একই ব্যক্তি একটি দলকে নজরে রাখবেন। সমস্যা চোখে পড়লে সমাধান করতেও তাই সহজ হবে।

পুরো টুর্নামেন্ট জুড়ে একটি দলের সাথে কাজ করার ফলে ওই কর্মকর্তার সাথে দলটির সম্পর্কেরও বেশ উন্নতি হওয়ারই কথা। দু’পক্ষের ভালো বোঝাপোড়ার ফলে দুর্নীতি দমন কার্যক্রমে আসবে নমনীয়তা। দুর্নীতি দমন কর্মকর্তার চোখে কোন সন্দেহ উদয় হলেও দ্রুত সতর্কতা সৃষ্টি করাটাও সহজ হবে বলেই আইসিসির ধারণা।

৩০ মে থেকে আসন্ন ইংল্যান্ড ও ওয়েলস বিশ্বকাপে আইসিসির দুর্নীতি দমন কার্যক্রমের নতুন এই পন্থায় কর্মকর্তারা আলাদা আলাদা দলের সাথে কাজ করলেও কেন্দ্রীয়ভাবে তারা নিজেদের মধ্যে সমন্বয় বজায় রাখবে বলেই আইসিসি সূত্রের খবর। এক্ষেত্রে নির্দিষ্ট দলের জন্য নিয়োগকৃত কর্মকর্তা দলটির সাথে একই হোটেলেই অবস্থান করবেন। ফলে আশা করাই যায় আইসিসির এমন নিবিড় তত্ত্বাবধায়ন সংশ্লিষ্ট দুর্নীতি দমন কার্যক্রমকে করবে আরও সহজ ও মসৃণ।

মন্তব্য

  • Developed By :