শিহাব আহসান খান

চার বছর খেলেননি ওয়ানডে, তবুও বিশ্বকাপে হলেন অধিনায়ক!

বিশ্বকাপ শুরু হতে আর বেশি বাকি নেই। অন্যান্য দল যখন বিশ্বকাপের জন্য স্কোয়াড ঘোষণা করছিলো তখন নিজেদের অধিনায়কই ঠিক করে উঠতে পারছিলো না শ্রীলঙ্কা। অবশেষে আজ বিশ্বকাপে লঙ্কানদের নেতা কে হবেন তা জানিয়েছে এসএলসি (শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড)। এখানে চমকে দিয়েছে সবাইকে। লাসিথ মালিঙ্গা, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসকে টপকে লঙ্কানদের নেতা হচ্ছেন দিমুথ করুনারত্নে।   

ফাইল ছবি

৩১ ছুঁইছুঁই এই বাঁহাতি ওপেনারের ওয়ানডে অভিষেক হয়েছিলো ২০১১ সালের জুলাইতে, ম্যানচেস্টারে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। শেষ বারের মতো লঙ্কানদের হয়ে রঙিন পোশাকে মাঠে নেমেছিলেন ২০১৫ বিশ্বকাপে ঐ ইংল্যান্ডের বিপক্ষেই, মার্চের ১ তারিখে ওয়েলিংটনে।

২০১১-২০১৫ এই চার বছরে মাত্র ১৭ ওয়ানডে খেলেছেন ৬০ টেস্টে ৪০৭৪ রান করা দিমুথ করুনারত্নে। এরপর আর কখনো ওয়ানডেতে সুযোগই মেলেনি ১৫.৮৩ গড়ে ১৯০ ওয়ানডে রান করা দিমুথের। এবার সুযোগ তো পাচ্ছেনই, সাথে হচ্ছেন দলের নেতা।

অধিনায়ক হিসাবে দিমুথ করুনারত্নের অনুমোদন দিয়েছেন শ্রীলঙ্কার টেলিযোগাযোগ, বিদেশী কর্মসংস্থান ও ক্রীড়া মন্ত্রী হারিন ফার্নান্ডো।

বিগত কয়েক সপ্তাহে লঙ্কানদের অধিনায়ক হবার দৌড়ে শামিল হয়েছিলো দিমুথ করুনারত্নের নাম। ২০১৫ সালের পর থেকে এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান কোন ওয়ানডে খেলেন নি। তবে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ২-০ তে সিরিজ জেতানো অধিনায়ক করুনারত্নের অধিনায়কত্বে মুগ্ধ অনেকেই।

শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড থেকে করুনারত্নেকে কাউন্টি ক্রিকেট (হ্যাম্পশায়ারের হয়ে) বাদ দিয়ে ঘরোয়া লিগে খেলার জন্য বলা হয়েছিলো। একজন বিশ্বস্ত ওপেনার ও নতুন অধিনায়ক খোঁজার মিশনে করুনারত্নেকে এমনটি বলা হয়েছিলো আর তিনি সেটা মেনেও নিয়েছিলেন।

ঘরোয়া লিগে পারফর্ম করে করুনারত্নে  বিশ্বকাপের ১৫ জনের স্কোয়াডে নিজের নাম নিশ্চিত করে ফেলেছিলেন। এবার নির্বাচকরা তাঁর নতুন চিন্তা ও কৌশলের ওপর ভরসা করে তাঁকে অধিনায়কের দায়িত্ব দিয়ে বড় বাজি খেললো।

এর আগে লঙ্কানদের ওয়ানডে অধিনায়ক লাসিথ মালিঙ্গা। মালিঙ্গার অধীনে শ্রীলঙ্কা এখনো একটা ওয়ানডেও জেতেনি শেষ হওয়া নিউজিল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের জন্য মালিঙ্গা অধিনায়ক নির্বাচিত হবার পর। এমন গুঞ্জনও আছে পুরো ড্রেসিংরুমে মালিঙ্গা কোন সাহায্য পাননা।

বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক হবার তৃতীয় ও শেষ দাবীদার ছিলেন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস। ২০১৫ বিশ্বকাপেও দলটিকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন তিনি। তবে এরপর নিয়মিত ইনজুরিতে পড়ে মাঠের ক্রিকেটই খেলতে পারেননি নিয়মিত। এবার ঘরোয়া লিগে হয়েছেন অবশ্য সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক

মন্তব্য

  • Developed By :